Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম

ধোলাইখালে বাণিজ্যিক ভবনে আগুন

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১৫২জন দেখেছেন

Image

 ডিজিটাল ডেস্ক:


রাজধানীর কাওরানবাজারে আগুন লাগার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার ধোলাইখাল এলাকায় একটি বাণিজ্যিক ভবনে আগুনের খবর পাওয়া গেছে। ঘটনাস্থলে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট।

শনিবার (১৮ মে) বেলা পৌনে ১১টার দিকে আগুনের খবর পাওয়া যায়। তবে এখনও কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।


জানা গেছে, ৪ তলা ভবনটির দ্বিতীয় তলায় মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক থেকে আগুনের সূত্রপাত। বাণিজ্যিক ভবনে ব্যাংক ছাড়াও আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। আগুন যেন অন্য তলায় ছড়িয়ে না পড়ে দমকল বাহিনী আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে।

এর আগে সকাল সকাল ১০টার দিকে কাওরানবাজারে আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। সেখানে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিটসহ স্থানীদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বেলা পৌনে ১১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে হতাহত বা ক্ষয়ক্ষতির খবর জানা যায়নি।


আরও খবর



শো-রুম খুলে দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

23 ডেস্ক :

ফেসবুক লাইভে এসে পণ্য বিক্রির সময় নানা বিতর্তিক প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ও মন্তব্য করে আলোচিত-সমালোচিত উদ্যোক্তা রোবাইয়াত ফাতিমা তনির মালিকানাধীন ‘সানভীস বাই তনি’র গুলশানের শো-রুম খুলে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে শো-রুমে পাকিস্তানি ড্রেস বিক্রি করা যাবে নাআজ সোমবার বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসেন দোলনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে তনির পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. খালেকুজ্জামান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সেলিম আজাদ ও আনিচ উল মাওয়া।

এর আগে গত ৬ জুন ‘সানভীস বাই তনি’র গুলশানের শো-রুম সিলগালা করা কেন অবৈধ হবে না, এই মর্মে জারি করা রুলের শুনানি শেষ হয়। একইসঙ্গে এ বিষয়ে আদেশের জন্য আজকের দিন ধার্য করা হয়। তার আগে ২৭ মে ‘সানভীস বাই তনি’র গুশনারের শো-রুম সিলগালা করা কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

এর আগে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃক ‘সানভীস বাই তনি’র গুলশানের শো-রুম সিলগালার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন রোবাইয়াত ফাতেমা তনি।

গত ১৪ মে ‘সানভীস বাই তনি’র গুলশান শাখায় অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। পরে প্রতারণার অভিযোগে শো-রুমটি বন্ধ করে দেয় তারা। ‘সানবীস বাই তনি’র বিরুদ্ধে অভিযোগ, দেশে তৈরি পোশাক পাকিস্তানি বলে বেশি দামে বিক্রি করত প্রতিষ্ঠানটি।

ওই অভিযানের নেতৃত্ব দেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মন্ডল। পরে ভোক্তা অধিকার ও জব্বার মন্ডলের বিরুদ্ধে হয়রানি, মানহানি এবং ব্যবসা বন্ধ করে দিতে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তোলেন রোবাইয়াত ফাতিমা তনি, করেন হাইকোর্টে রিট। বলে আদেশ দিয়েছেন আদালত।  


আরও খবর



খালেদা জিয়াও কালো টাকা সাদা করেছেন: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

23 ডেস্ক :

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কালো টাকা সাদা করেছেন সাইফুর রহমান (সাবেক অর্থমন্ত্রী)। বেগম খালেদা জিয়াও কালো টাকা সাদা করেছেন। সাইফুর রহমান - তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন, তার কথা বলতে চাই না, তারাও কি তাহলে দুর্বৃত্ত? এবারের কাজেট করা হয়েছে রাঘোব বোয়ালদের লুটপাট বন্ধ করার জন্য।রোববার (৯ জুন) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথসভায় তিনি এ কথা বলেন।দুর্নীতি করলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ কাউকে ছাড় দেয় না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ এবং সাবেক পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির যে অভিযোগ উঠেছে, তারাও ছাড় পাবেন না।

আজিজ-বেনজীররা আওয়ামী লীগের কেউ না উল্লেখ করে তিনি বলেন, দুর্নীতি করে কেউ কোনো ছাড় পাবে না। আজিজ-বেনজীর আওয়ামী লীগের কেউ না। তারা দুর্নীতি করেছে। তাদের দায়মুক্তি দিয়ে বিচারহীনতার সংস্কৃতি আওয়ামী লীগকে পালানোর হুমকি দিয়ে বিএনপি নিজেরাই পালিয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ২৮ অক্টোবর লাশের ওপর দাঁড়িয়ে রাজনীতি করতে চেয়েছিল বিএনপি। সেজন্য তাদের শাস্তি পেতে হবে। বিএনপি যখন আন্দোলনের কথা বলে তখন হাসি পায়। বিএনপি আওয়ামী লীগকে হুমকি দিয়ে নিজেরাই পল্টন থেকে পালিয়ে যায়। বিএনপি আন্দোলন করতে পারবে না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ডিবি অফিসে কোরাল মাছ দিয়ে ভাত খেয়ে কোথায় যে চলে গেলেন।চালু করা হচ্ছে না।


আরও খবর



ক্লুলেস ইজিবাইক চালক নয়ন হত্যাকান্ডর মূল পরিকল্পনাকারী মিজান’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১৫৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদ 
রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন শেখদী মল্লিক এলাকায় বসবাসকারী মোঃ নয়ন (২০), পিতা-মোঃ বাবুল হোসেন নামক একজন ইজিবাইক চালক সে ভাড়ায় ইজিবাইক চালিয়ে তার জীবিকা নির্বাহ করতো। গত ১৪ মে ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ সন্ধ্যা আনুমানকি ০৬:৩০ ঘটিকায় ন্যায় যাত্রী বহন করার উদ্দেশ্যে গ্যারেজ হতে ইজিবাইক নিয়ে বের হয়ে। প্রতিদিনের ন্যায় নয়ন রাত আনুমানিক ২২:০০ ঘটিকা হতে ২২:৩০ ঘটিকার মধ্যে বাসায় ফেরার কথা থাকলেও ঐদিন রাতে সে বাসায় না ফিরলে তার পরিবারের লোকজন তাকে মোবাইল ফোনে কল দিলে ফোন বন্ধ পায়। অতঃপর সম্ভাব্য সকল জায়গায় খোঁজখবর নিয়েও নয়নের কোন সন্ধান না পেয়ে তার পরিবারের লোকজন চিন্তিত হয়ে পড়ে। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে গত ১৮ মে ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ বিকাল আনুমানিক ১৬:৩০ ঘটিকায় নয়ননের পিতা বাবুল হোসেন লোক মুখে সংবাদ পায় যে, রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইল মৌজাস্থ গ্রীন মডেল টাউনের বাউন্ডারীর ভিতরে ছনক্ষেতের মধ্যে হাত, পা ও মুখ বাধা এবং গলিত অবস্থায় এক ব্যক্তির লাশ পড়ে আছে। উক্ত সংবাদ পেয়ে নয়নের পরিবারের লোকজন দ্রæত উল্লেখিত স্থানে গিয়ে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশের উপস্থিতিতে লাশটি দেখে এটি নিখোঁজ নয়নের লাশ বলে শনাক্ত করে। অতঃপর পুলিশ স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করতঃ লাশ ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।
উক্ত ঘটনার পর মৃত নয়নের বাবা মোঃ বাবুল হোসেন তার পরিবারের সাথে পরামর্শ করতঃ রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। যার মামলা নম্বর-৭৭, তাং-১৯/০৫/২০২৪ খ্রিঃ, ধারা- ৩০২/২০১/৩৪ দÐ বিধি। ইতোমধ্যে হত্যাকাÐের ঘটনাটি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইলেক্ট্রনিক প্রিন্ট মিডিয়ায় গুরুত্বসহকারে প্রকাশ করায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। ঘটনাটি জানতে পেরে র‌্যাব-১০, সিপিসি-১ যাত্রাবাড়ী ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল উক্ত চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস হত্যাকারি রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকাণ্ড  জড়িত আসামিদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি ও ছায়া তদন্ত শুরু করে।
 এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ২৭ মে ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ বিকাল আনুমানিক ১৭:১০ ঘটিকায় র‌্যাব-১০, সিপিসি-১ যাত্রাবাড়ী ক্যাম্পের উক্ত আভিযানিক দল তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় এবং র‌্যাব-১৩ এর সহযোগীতায় গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি থানাধীন কঞ্চিপাড়া রসুলপুর এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় চাঞ্চল্যকর ও ক্লুলেস ইজিবাইক চালক নয়ন হত্যাকারি মূলহোতা মোঃ নিজাম উদ্দিন  মিজান (২৬), পিতা-মৃত আমীর হোসেন, গ্রামঃ পিটিবি ওয়াবদা গোসাইপুর, থানা-কোতয়ালী, জেলা-দিনাজপুর’কে গ্রেফতার করে।
 প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত মিজান উক্ত হত্যাকারির্ মূল পরিকল্পনাকারী বলে স্বীকার করেছে। মিজান তার অপর দুই সহযোগী দ্বীন ইসলাম এবং মমিন ওরফে মকবুল’কে নিয়ে ইজিবাইক চালক নয়নকে হত্যা করে তার ইজিবাইক ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করেছিল। অতঃপর তাদের পরিকল্পনা মোতাবেক গত ১৪ মে ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ রাত আনুমানিক ২০:৪০ ঘটিকায় যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা মোড় হতে তাদের পূর্বপরিকল্পিত স্থান ঘটনাস্থল যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইল মৌজাস্থ গ্রীন মডেল টাউন এলাকায় যাওয়ার কথা বলে নয়নের ইজিবাইকটি ভাড়া করে উক্ত এলাকায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা করে। পরবর্তীতে রাত আনুমানিক ২১:১০ ঘটিকায় উক্ত এলাকায় পৌঁছালে মিজান নয়নকে ইজিবাইক থেকে নামতে বলে। অতঃপর নয়ন ইজিবাইক থেকে নামার সাথে সাথে মিজান, দ্বীন ইসলাম ও মমিন তিনজন মিলে নয়নকে ঘটনাস্থলে নিয়ে গিয়ে মুখ চেপে ধরে গলায় গামছা পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পরবর্তীতে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে নয়নের মৃতদেহ উক্ত এলাকার একটি ছনক্ষেতের মধ্যে ফেলে রেখে নয়নের ইজিবাইকটি নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।
গ্রেফতারকৃত মিজানের দেখানো মতে ঘটনাস্থলের পাশের ঝোপ হতে হত্যার পর নয়নের লাশ গুম করার কাজে ব্যবহৃত একটি কোদাল ও একটি প্লাস্টিকের বাজারের ব্যাগের ভিতরে নীল রংয়ের পলিথিন উদ্ধার করা হয়। তারা নয়নকে হত্যার পর লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে উদ্ধারকৃত পলিথিন দিয়ে নয়নের মৃতদেহ পেচিয়ে মাটিতে পুতে ফেলার পরিকল্পনা করেছিল কিন্তু লোকজনের আনাগুনার ভয়ে পরবর্তীতে লাশ উক্ত ছনক্ষেতের মধ্যে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।


গ্রেফতারকৃত আসামিকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৯৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক 
এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ০৩ জুন ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ আনুমানিক দুপুর ১২:৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানাধীন কদমতলী সিএনজি স্ট্যান্ড এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহন হতে অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে চাঁদাবাজ  চক্রের অন্যতম মূলহোতা ১। মোঃ ইমরান @ মাইকেল (৪৪), পিতা-মৃত আমির হামজা @ বাদল, সাং-বাগডাসা লেন, নয়াবাজার, থানা-বংশাল, ডিএমপি, ঢাকা সহ মোট ০৪ জন পরিবহন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত অন্যান্য ব্যক্তিদের নাম ২। মোঃ অনিক হাসান @ রানা (৩২), পিতা-মোঃ জামাল উদ্দিন, সাং-চুনকুটিয়া,থানা-দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, জেলা-ঢাকা, ৩। মোঃ সুমন মিয়া (৪২), পিতা-মৃত গেদা মিয়া, সাং-কদমতলী, তালগাছতলা, থানা-দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, জেলা-ঢাকা, ৪। মোঃ আবুল খায়ের (৪২), পিতা-মৃত আব্দুল বাতেন,সাং-রঘুনাথপুর, থানা-চাঁদপুর সদর, জেলা-চাঁদপুর বলে জানা যায়। এসময় তাদের নিকট থেকে আদায়কৃত চাঁদা নগদ- ৩,৩৮০/- (তিন হাজার তিনশত আশি) টাকা ও ০১ টি প্লাস্টিকের পাইপ এবং ০৩ টি লাঠি উদ্ধার করা হয়।  

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা বেশ কিছুদিন যাবৎ রাজধানীর দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, কোতয়ালী, ও যাত্রাবাড়ীসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহনের ড্রাইভার ও হেলপারদের সাথে অশোভন আচরনের মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে অবৈধভাবে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে আসছিল।গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তিনজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে।

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরও তিনজন। তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (১০ জুন) ভোরে জেলার উখিয়া উপজেলার চার নম্বর (এক্সটেনশন) রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এফ ব্লকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, ওই ক্যাম্পের এফ ব্লকের জাফর আহম্মদের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৩১), মৃত আব্দুর রকিমের ছেলে মো. ইছহাক (৫৪) ও ক্যাম্প-৩-এর ই ব্লকের মো. ইসমাইলের ছেলে ফিরোজ খান (১৮)।

আহতরা হলেন- ক্যাম্পের এফ ব্লকের হাছানের ছেলে আব্দুল হক (৩২), নজির আহাম্মদের ছেলে আব্দুস শুক্কুর (৫৫) ও মৃত ওমর মিয়ার ছেলে আব্দুল মোনাফ (৬০)।

সূত্র জানিয়েছে, ভোর পৌনে চারটার দিকে রোহিঙ্গা মো. ইলিয়াছকে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশনের (আরএসও) সদস্যরা গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে, পায়ে, তলপেটে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়।

এরপরে, ভোর সোয়া চারটার দিকে মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আরএসও সমর্থক মো. ইছহাক, ফিরোজ খান, আব্দুল হক, আব্দুস শুক্কুর ও আব্দুল মোনাফকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে।

ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, প্রথমে নিহত রোহিঙ্গা ইলিয়াছ আরসার সোর্স হিসেবে কাজ করতো। আরসা সম্পর্কে তথ্য দিতে রাজি না হওয়ায় আরএসও সদস্যরা প্রথমে তাকে হত্যা করে। পরে ঘটনার খবর পেয়ে আরসা সদস্যরা এসে কয়েকজন আরএসও সমর্থকের ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়।

ঘটনার পরে আহত রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার জন্য উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. ইছহাক ও ফিরোজ খানকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম হোসেন জানান, নিহতদের মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মো. ইকবাল বলেন, একজন ঘটনাস্থলে মারা যায়। দুজন আহত অবস্থায় হাসপাতালে মারা যায়। বর্তমানে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।


আরও খবর