Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম
কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে প্রতারক চক্র উধাও

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের নামে অভিনব প্রতারণা ॥ কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে প্রতারক চক্র উধাও

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৯৭৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিনি

ধি : শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের নামে অভিনব কায়দায় টাকা হাতিয়ে নিতে তৎপর একটি প্রতারক চক্র। বিনিয়োগ করার এই ফাঁদে পা দিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে সাধারণ মানুষ। সর্বস্ব হারিয়ে দেশের আইন আদালতের দারস্থ হলে মিলছে না প্রতিকার। কারণ ততদিনে প্রতারক চক্র উধাও। এমনই এক প্রতারক চক্রের সন্ধান মিলেছে রাজধানীর বাড্ডা থানায়। সূত্রে জানা যায়, রাজধানীর বাড্ডা থানাধীন ৪২নং ওয়ার্ড বেরাইদ ভূঁইয়া পাড়া এলাকার মৃত মেজবু’র ছেলে সাইদুজ্জামান (৩৫) একই এলাকার কালু মিয়ার ছেলে আব্দুন নূর (৫০) এর সাথে দীর্ঘদিনের পরিচয় ও সুসম্পর্ক সুবাদে বিভিন্ন সময় পার্টনারে স্টক একচেঞ্জ (শেয়ার) ব্যবসা করার নিমিত্তে ছোট ছোট অংকের টাকা ধার নিতেন ও পরিশোধ করতেন। এভাবেই প্রতারক সাইদুজ্জামান বিশ^াস অর্জন করার পর একটি চেকের বিপরীতে সর্বমোট ২,৪০,৫০,০০০/= (দুই কোটি চল্লিশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা হাতিয়ে নিয়ে সব রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে ভুক্তভোগী আব্দুন নূর চেকের মেয়াদে চেকটি ব্যাংকে জমা দিলে উল্লেখিত একাউন্টে কোন টাকা না থাকায় চেকটি ডিজঅনার হয়ে যায়। প্রতারক সাইদুজ্জামানকে টাকা পরিশোধের জন্য বিগত ২৫/০৬/২০২৩ইং তারিখে একটি লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করে। কিন্তু ২৬/০৬/২০২৩ইং তারিখে লিগ্যাল নোটিশ এর প্রাপ্তি স্বীকার করার ১ মাস পরেও পাওনা টাকা পরিশোধ করার ব্যাপারে কোন আগ্রহ দেখান নাই প্রতারক সাইদুজ্জামান। পরবর্তীতে ২১/০৮/২০২৩ইং তারিখে আব্দুন নূর বাদী হয়ে সাইদুজ্জামানের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ এসি এম এম-১ আদালত নং- ০২ ঢাকা বরাবরে ১৩৮ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং- ৩৭৬/২০২৩। 

ঘটনার অনুসন্ধানে গিয়ে সাইদুজ্জামান সম্পর্কে বেরিয়ে আসে আরো চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। জানা যায় প্রতারণার বাণিজ্য করতে এক সময়ের মসজিদের ক্যাশিয়ার এই সাইদুজ্জামান গড়ে তুলেছেন একটি চক্র। আর এই চক্রের মাধ্যমেই তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে একই কায়দায় আত্মসাৎ করেছে কোটি কোটি টাকা। যাদের নাম এবং টাকার পরিমান ক্রমানুযায়ী দেওয়া হলো: (১) নূর হোসেন- ৫ লক্ষ টাকা, (২) তারিফ সরকার- ২১ লক্ষ টাকা, (৩) হামিদা আক্তার- ১৮ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, (৪) রনি- ৩৬ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা, (৫) মফিজুল- ৫০ লক্ষ টাকা, (৬) হাফিজা- ৮ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (৭) আল-আমিন- ৬ লক্ষ টাকা, (৮) সাইদ- ৬০ লক্ষ টাকা, (৯) শিপন- ৫ লক্ষ টাকা, (১০) মমিনুল- ৯ লক্ষ টাকা, (১১) ইকবাল গং- ৩০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (১২) আল আমিন- ২৭ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, (১৩) ইয়াজ মোহাম্মদ- ১৮ লক্ষ টাকা, (১৪) ফাহিমা- ৭ লক্ষ টাকা, (১৫) তাজ মোহাম্মদ- ৭ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা, (১৬) রাজু আহমেদ- ৫ লক্ষ টাকা, (১৭) চকন গং- ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (১৮) হাবিব- ৭০ লক্ষ টাকা, (১৯) শাহিন- ২৭ লক্ষ টাকা, (২০) কাউসার- ২০ লক্ষ টাকা, (২১) আমিনুল- ৫ লক্ষ টাকা, (২২) নাদিম- ৫ লক্ষ টাকা, (২৩) রবিন- ১০ লক্ষ টাকা, (২৪) রনি- ৩৭ লক্ষ টাকা, (২৫) আবুল কালাম- ৫লক্ষ টাকা, (২৬) তাইজুল ইসলাম- ১১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (২৭) আলম- ১০ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা, (২৮) সুমন- ৩৫ লক্ষ টাকা, (২৯) রাশেদুল- ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (৩০) মোঃ রাজিব হোসেন- ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, (৩১) আসলামুজ্জামান স্বপন- ৮ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা, (৩২) হাফিজুল্লাহ্- ৬ লক্ষ টাকা, (৩৩) দ্বীন মোহাম্মদ- ৬ লক্ষ টাকা, (৩৪) উজ্জ্বল- ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, (৩৫) ফয়সাল- ২৬ লক্ষ টাকা, (৩৬) হোসনে আরা- ৮ লক্ষ টাকা, (৩৭) মোঃ কবির হোসেনÑ ৬ লক্ষ টাকা ও (৩৮) আমিন- ১৮ লক্ষ টাকা।

প্রতারক সাইদুজ্জামান এর এই চক্রের আরো সদস্য হলেন (১) আয়েশা বেগম ও (২) সোহেল যারা সবই বর্তমানে ওয়েরেন্টভুক্ত আসামী। সাইদুজ্জামানকে ধরিয়ে দিতে ৫ লক্ষ টাকার পুরস্কারের ঘোষনা দিয়েছেন ভূক্তভোগীরা। এ প্রতারক চক্রের মূল হোতা সাইদুজ্জামানসহ তাদের সহকারীদের অতিদ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবীর জানিয়েছেন এলাকাবাসী ও ভূক্তভোগীরা।

ভিডিও নিউজের লিংক : https://www.facebook.com/Channel23info/videos

আরও খবর



লালপুরে কৃষি জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে পুকুর কাটা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৭৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক 

   নাটোরের লালপুরে কৃষি জমির শ্রেণী পরিবর্তন ও অবৈধ ভাবে পুকুর কাটা বন্ধের  দাবিতে মানববন্ধন , বিক্ষোভ করেছে ভুমিহীনরা।
ভুমিহীন সংগঠনের আয়োজনে সোমবার ( ১০ জুন ) লালপুরের আড়বাব ইউনিয়ন পরিষদের সামনে লালপুর ভূমিহীন আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সদস্য রায়হান কবিরের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন লালপুর ভূমিহীন আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আমিনউদ্দিন ,প্রচার সম্পাদক তুহিন আলি , বাগাতিপাড়া ভূমিহীন আঞ্চলিক কমিটির ইসমাইল হোসেন, লালপুর ভূমিহীন জেন্ডার সহিংসতা মনিটরিং কমিটির আহ্বায়ক জামেনা বেগম , নিজেরা করি বাগাতিপাড়া অঞ্চল সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ ।
জামেনা বেগম বলেন, মাছে ভাতে বাঙালি , ভাত যদি না থাকে মাছ দিয়ে কি হবে। জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে অবৈধভাবে পুকুর কাটা হচ্ছে। এদিকে যেমন আবাদি জমি নষ্ট হচ্ছে আবার আমরা রাতে ঘুমাতে পারছি না ,গাড়ির শব্দের কারণে ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার অসুবিধা হচ্ছে।রাতের অন্ধকারে পুকুর কাটা বন্ধ করতে প্রশাসন ও সর্বসাধারণের কামনা করেন।

আরও খবর



খালেদা জিয়াও কালো টাকা সাদা করেছেন: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ৬৭জন দেখেছেন

Image

23 ডেস্ক :

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কালো টাকা সাদা করেছেন সাইফুর রহমান (সাবেক অর্থমন্ত্রী)। বেগম খালেদা জিয়াও কালো টাকা সাদা করেছেন। সাইফুর রহমান - তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন, তার কথা বলতে চাই না, তারাও কি তাহলে দুর্বৃত্ত? এবারের কাজেট করা হয়েছে রাঘোব বোয়ালদের লুটপাট বন্ধ করার জন্য।রোববার (৯ জুন) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথসভায় তিনি এ কথা বলেন।দুর্নীতি করলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ কাউকে ছাড় দেয় না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদ এবং সাবেক পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির যে অভিযোগ উঠেছে, তারাও ছাড় পাবেন না।

আজিজ-বেনজীররা আওয়ামী লীগের কেউ না উল্লেখ করে তিনি বলেন, দুর্নীতি করে কেউ কোনো ছাড় পাবে না। আজিজ-বেনজীর আওয়ামী লীগের কেউ না। তারা দুর্নীতি করেছে। তাদের দায়মুক্তি দিয়ে বিচারহীনতার সংস্কৃতি আওয়ামী লীগকে পালানোর হুমকি দিয়ে বিএনপি নিজেরাই পালিয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ২৮ অক্টোবর লাশের ওপর দাঁড়িয়ে রাজনীতি করতে চেয়েছিল বিএনপি। সেজন্য তাদের শাস্তি পেতে হবে। বিএনপি যখন আন্দোলনের কথা বলে তখন হাসি পায়। বিএনপি আওয়ামী লীগকে হুমকি দিয়ে নিজেরাই পল্টন থেকে পালিয়ে যায়। বিএনপি আন্দোলন করতে পারবে না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ডিবি অফিসে কোরাল মাছ দিয়ে ভাত খেয়ে কোথায় যে চলে গেলেন।চালু করা হচ্ছে না।


আরও খবর



অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৯৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক 
এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ০৩ জুন ২০২৪ খ্রিঃ তারিখ আনুমানিক দুপুর ১২:৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানাধীন কদমতলী সিএনজি স্ট্যান্ড এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহন হতে অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে চাঁদাবাজ  চক্রের অন্যতম মূলহোতা ১। মোঃ ইমরান @ মাইকেল (৪৪), পিতা-মৃত আমির হামজা @ বাদল, সাং-বাগডাসা লেন, নয়াবাজার, থানা-বংশাল, ডিএমপি, ঢাকা সহ মোট ০৪ জন পরিবহন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত অন্যান্য ব্যক্তিদের নাম ২। মোঃ অনিক হাসান @ রানা (৩২), পিতা-মোঃ জামাল উদ্দিন, সাং-চুনকুটিয়া,থানা-দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, জেলা-ঢাকা, ৩। মোঃ সুমন মিয়া (৪২), পিতা-মৃত গেদা মিয়া, সাং-কদমতলী, তালগাছতলা, থানা-দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, জেলা-ঢাকা, ৪। মোঃ আবুল খায়ের (৪২), পিতা-মৃত আব্দুল বাতেন,সাং-রঘুনাথপুর, থানা-চাঁদপুর সদর, জেলা-চাঁদপুর বলে জানা যায়। এসময় তাদের নিকট থেকে আদায়কৃত চাঁদা নগদ- ৩,৩৮০/- (তিন হাজার তিনশত আশি) টাকা ও ০১ টি প্লাস্টিকের পাইপ এবং ০৩ টি লাঠি উদ্ধার করা হয়।  

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা বেশ কিছুদিন যাবৎ রাজধানীর দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, কোতয়ালী, ও যাত্রাবাড়ীসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহনের ড্রাইভার ও হেলপারদের সাথে অশোভন আচরনের মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে অবৈধভাবে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে আসছিল।গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


আরও খবর



রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তিনজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে।

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরও তিনজন। তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (১০ জুন) ভোরে জেলার উখিয়া উপজেলার চার নম্বর (এক্সটেনশন) রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এফ ব্লকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, ওই ক্যাম্পের এফ ব্লকের জাফর আহম্মদের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৩১), মৃত আব্দুর রকিমের ছেলে মো. ইছহাক (৫৪) ও ক্যাম্প-৩-এর ই ব্লকের মো. ইসমাইলের ছেলে ফিরোজ খান (১৮)।

আহতরা হলেন- ক্যাম্পের এফ ব্লকের হাছানের ছেলে আব্দুল হক (৩২), নজির আহাম্মদের ছেলে আব্দুস শুক্কুর (৫৫) ও মৃত ওমর মিয়ার ছেলে আব্দুল মোনাফ (৬০)।

সূত্র জানিয়েছে, ভোর পৌনে চারটার দিকে রোহিঙ্গা মো. ইলিয়াছকে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশনের (আরএসও) সদস্যরা গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে, পায়ে, তলপেটে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়।

এরপরে, ভোর সোয়া চারটার দিকে মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আরএসও সমর্থক মো. ইছহাক, ফিরোজ খান, আব্দুল হক, আব্দুস শুক্কুর ও আব্দুল মোনাফকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে।

ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, প্রথমে নিহত রোহিঙ্গা ইলিয়াছ আরসার সোর্স হিসেবে কাজ করতো। আরসা সম্পর্কে তথ্য দিতে রাজি না হওয়ায় আরএসও সদস্যরা প্রথমে তাকে হত্যা করে। পরে ঘটনার খবর পেয়ে আরসা সদস্যরা এসে কয়েকজন আরএসও সমর্থকের ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়।

ঘটনার পরে আহত রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার জন্য উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. ইছহাক ও ফিরোজ খানকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম হোসেন জানান, নিহতদের মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মো. ইকবাল বলেন, একজন ঘটনাস্থলে মারা যায়। দুজন আহত অবস্থায় হাসপাতালে মারা যায়। বর্তমানে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।


আরও খবর



কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক 

কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এবার ঢাকার মধ‍্যে কোরবানি গরুর চামড়ার দাম ধরা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ৫৫-৬০ টাকা।

আর ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০-৫৫ টাকা।

সোমবার সচিবালয়ে ঈদুল আজহা উপলক্ষে কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণ সংক্রান্ত এক বৈঠক শেষে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটুর উপস্থিতিতে নতুন মূল্য ঘোষণা করেন বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. নাছির উদ্দিন মজুমদার।

গতবারের চেয়ে এবার প্রতি বর্গফুট চামড়ার দাম ৫ টাকা বাড়ানো হলো। সেই সঙ্গে প্রতি পিস চামড়ার সর্বনিম্ন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ঢাকায় প্রতি পিস গরুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ২০০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ১ হাজার টাকা।

বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জানান, এবারের ঈদে খাসির চামড়ার ক্রয়মূল্য প্রতি বর্গফুট ২০-২৫ টাকা এবং বকরির চামড়ার ক্রয়মূল্য ১৮-২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

গত বছর ঢাকার মধ‍্যে কোরবানি গরুর চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করা হয় প্রতি বর্গফুট ৫০-৫৫ টাকা এবং ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৪৫-৪৮ টাকা।

আর খাসির চামড়ার ক্রয়মূল্য নির্ধারণ করা হয় প্রতি বর্গফুট ১৮-২০ টাকা এবং বকরির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয় প্রতি বর্গফুট ১২-১৪ টাকা।


আরও খবর