Logo
আজঃ শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3
শিরোনাম

যুবলীগ হচ্ছে আওয়ামী লীগের একটি শক্তিশালী সহযোগি সংগঠন -শহীদ উল্লা খন্দকার

প্রকাশিত:রবিবার ১২ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | ৩৯জন দেখেছেন

Image

মাহাবুব সুলতান, কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্র্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজ নির্বাচনী এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিনিধি ও সাবেক সিনিয়র সচিব মোঃ শহীদ উল্লা খন্দকার বলেছেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যতগুলো সহযোগি সংগঠন আছে তার মধ্যে যুবলীগ অন্যতম। যুবলীগ হচ্ছে আওয়ামী লীগের একটি শক্তিশালী সহযোগি সংগঠন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে শহীদ শেখ ফজলুল হক মনি ১৯৭২ সালের এই দিনে এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগি সংগঠনের সাথে কোন ভূঁইফোর সংগঠনের কখনোই মিল হবে না।

শনিবার গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে যুবলীগের ৫১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আমাদের কারো যদি কোন ত্রুটি বিচ্যুতি থাকে তাহা এখন ভুলে যেতে হবে। সময় খুব কম। দ্রুত সময়ের মধ্যে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা হবে। তফসিল ঘোষনার পরেই আমাদের সকলের মিলেমিশে আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করতে হবে। যাতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবার ক্ষতায় এসে এই দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে পারেন।

কোটালীপাড়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ফজলুর রহমান দিপুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন শেখ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এইচ এম অহিদুল ইসলাম, মোঃ কামাল হোসেন শেখ, আমিনুজ্জামান খান মিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক মতিয়ার রহমান হাজরা, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হাজরা বক্তব্য রাখেন। 

আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিল ও কেক কাটা হয়। এর আগে দলীয় নেতা- কর্মীরা মোঃ শহীদ উল্লা খন্দকারকে সাথে নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রাটি উপজেলা পরিষদ চত্তর থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যলয়ে এসে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।


আরও খবর



শীতে লালশাক কেন খাবেন?

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | ১৮জন দেখেছেন

Image

শীতের হাওয়া বইতে শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সবুজ শাক-সবজির আধিক্য দেখা যায়, যা আমাদের মৌসুমী খাদ্যের প্রধান উপাদান হয়ে ওঠে। সরিষা শাক এবং পালং শাক সাধারণত বেশি খাওয়া হয়। মেথি এবং বথুয়া শাকও খাওয়া হয়। এই সবুজ শাকগুলোর অনেক উপকারিতা রয়েছে। তবে শুধু সবুজ শাক নয়, লাল রঙের শাক লালশাকেও আছে প্রচুর পুষ্টিগুণ। শীতের সময়ে সবুজ শাকের পাশাপাশি পাতে থাকুক লালশাকও।

লালশাক

লালশাকে ভিটামিন এ এবং সি, ফাইবার, ফোলেট, আয়রন এবং ক্যালসিয়ামসহ অনেক পুষ্টি থাকে। যা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারিতা নিয়ে আসে। নিয়মিত লালশাক খেলে তো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। শীতকালীন ডায়েটে লালশাক রাখার উপকারিতা চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
লালশাকে প্রচুর প্রোটিন এবং ভিটামিন সি রয়েছে। যা শীতের মাসগুলোতে সক্রিয়ভাবে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। এটি মৌসুমী রোগের বিরুদ্ধে কার্যকর ঢাল হিসেবে কাজ করে। তাই শীতের সময়ে লালশাক খেতে হবে নিয়মিত।

২. হজমক্ষমতা বাড়ায়
যারা হজমের সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য একটি উপকারী খাবার হতে পারে লালশাক। কারণ লালশাকের উচ্চ ফাইবার উপাদান পাচনতন্ত্রকে সুস্থ রাখতে কাজ করে, এটি কোষ্ঠকাঠিন্য এবং গ্যাস সংক্রান্ত সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়।

৩. চোখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে
ভিটামিন এ স্বাস্থ্যকর চোখ বজায় রাখার জন্য অপরিহার্য। লালশাকে প্রচুর ভিটামিন এ রয়েছে। নিয়মিত এই শাক খেলে তা চোখের বিভিন্ন সমস্যা প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে। তাই চোখ ভালো রাখতে এই শাক পাতে রাখতে হবে।

৪. রক্ত বিশুদ্ধ করে
লালশাক রক্ত পরিশোধনকারী বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। এই শাক আপনার শীতকালীন খাদ্যতালিকায় যোগ করলে তা স্বাস্থ্যকর ত্বক এবং বিশুদ্ধ রক্ত তৈরিতে অবদান রাখে। বুঝতেই পারছেন, লাল রঙের এই শাক আপনার জন্য কতটা প্রয়োজনীয়?

৫. হিমোগ্লোবিনের মাত্রা উন্নত করে
লৌহ সমৃদ্ধ লালশাক রক্তস্বল্পতার রোগীদের জন্য উপকারী একটি খাবার। নিয়মিত লালশাক খেলে তা হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে, এটি রক্তের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে। তাই হিমোগ্লোবিনের মাত্রা উন্নত করার জন্য নিয়মিত লালশাক খেতে হবে।

৬. ক্ষুধা বৃদ্ধি করে
খাবারে অরুচি হলে তা আপনার স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলবে। তাই এমন খাবার খেতে হবে যা ক্ষুধা বাড়াতে কাজ করে। তেমনই একটি খাবার হলো লালশাক। এই শাক আপনার ক্ষুধা বৃদ্ধিতে কাজ করবে। তাই নিজেকে সুস্থ রাখতে লালশাক রাখতে হবে খাবারের তালিকায়।


আরও খবর

শুষ্ক ত্বকের যত্নে মধু

বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩

পেটের মেদ কমাবে আদা ও তুলসি পাতা

বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর 20২৩




পেটের মেদ কমাবে আদা ও তুলসি পাতা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর 20২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | ২৩জন দেখেছেন

Image

আমরা প্রায় সবাই জীবনের কোনো না কোনো সময়ে ওজন কমানোর চেষ্টা করি, বিভিন্ন টিপস এবং কৌশল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করি। যদিও কিছু হ্যাক বিস্ময়করভাবে কাজ করে, তবে বেশিরভাগই ইতিবাচক ফল নিয়ে আসে না। ওজন কমানোর একটি নিয়ম যা ধারাবাহিকভাবে প্রভাবিত করে তা হলো ডিটক্স ওয়াটার। তুলসি, আদা এবং মধু দিয়ে তৈরি ডিটক্স ওয়াটার আপনার পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করবে।

তুলসি পাতা ওজন কমাতে সাহায্য করে
ডিকে পাবলিশিং হাউসের ‌‘হিলিং ফুডস’ বই অনুসারে, তুলসিতে ইউজেনল নামক একটি এসেন্সিয়াল অয়েল রয়েছে, যা জয়েন্ট এবং পাচনতন্ত্রের ওপর প্রদাহ বিরোধী প্রভাব ফেলে। তুলসি পাতা একটি হালকা মূত্রবর্ধক হিসাবে কাজ করে এবং এটি স্বাস্থ্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ, যা ফ্রি র‌্যাডিক্যাল ক্ষতি থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

ডাঃ শিখা শর্মা তার বই ‘১০১টি ওজন কমানোর টিপস’-এ উল্লেখ করেছেন, সকালে পানির সঙ্গে পাঁচ থেকে ছয়টি তুলসি পাতা খেলে তা শরীরকে ডিটক্সিফাই করতে এবং মেটাবলিজম বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটি ক্যালোরি পোড়াতে এবং প্রাকৃতিকভাবে টক্সিন দূর করতে শরীরকে সাহায্য করে।

আদা কীভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করে
আদার মধ্যে জিঞ্জেরল নামক একটি যৌগ রয়েছে। ‘হিলিং ফুডস’ বইতে উল্লেখ করা হয়েছে, এই যৌগ হজম এনজাইম উৎপাদনকে উদ্দীপিত করে সামগ্রিক হজমশক্তি বাড়ায়। ফলস্বরূপ পেট ফাঁপা কমায় এবং হজমের কার্যকারিতা উন্নত করে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি দূর করতে সহায়তা করে।

তুলসি-আদার ডিটক্স ওয়াটার কীভাবে তৈরি করবেন
রেসিপিটি সহজ। পাঁচ থেকে ছয়টি তাজা তুলসি পাতা এবং এক ইঞ্চি টুকরা আদা নিন। এগুলো এক গ্লাস পানিতে যোগ করুন এবং যতক্ষণ না এটি অর্ধেক কমে যায় ততক্ষণ সেদ্ধ করুন। ফুটানোর পরে পানি ছেঁকে নিন এবং সকালে খালি পেটে পান করুন। অতিরিক্ত স্বাদের জন্য এতে সামান্য মধুও যোগ করতে পারেন।

ওজন কমানোর যাত্রা সহজ করতে তুলসি-আদার ডিটক্স ওয়াটার আপনার সকালের একটি অংশ করুন। এই ডিটক্স ওয়াটার আপনার দৈনন্দিন রুটিনে যোগ করলে পরিবর্তনটা নিজেই বুঝতে পারবেন।সর্বদা মনে রাখবেন যে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জনের জন্য সংযম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই সময় নিয়ে লেগে থাকুন। এতে ওজন কমানোর কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো সহজ হবে।


আরও খবর

শুষ্ক ত্বকের যত্নে মধু

বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩

শীতে লালশাক কেন খাবেন?

সোমবার ২৭ নভেম্বর ২০২৩




এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার ৭৮.৬৪ শতাংশ

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | ১২জন দেখেছেন

Image

চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এতে গড় পাসের হার ৭৮ দশমিক ৬৪ শতাংশ। ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের গত বছরের চেয়ে এবার পাসের হার কমেছে ৭ দশমিক ৩১ শতাংশ। গত বছর পাসের গড় হার ছিল ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

২৬ নভেম্বর বেলা ১১টায় ওয়েবসাইট ও স্ব-স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফল প্রকাশ করা হয়। এর আগে সকাল ১০টায় এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলের সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেওয়া হয়।

দুপুর ২টায় সংবাদ সম্মেলনে ফলের সার্বিক বিষয় তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, পাসের হারেও এগিয়ে ছাত্রীরা। ছাত্রীদের পাসের হার ৮০ দশমিক ৫৭ শতাংশ। ছাত্রদের পাসের হার ৭৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৯২ হাজার ৩৬৫ শিক্ষার্থী । গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন ১ লাখ ৭৬ হাজার ২৮২ জন।

ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৭৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ, বরিশাল বোর্ডে ৮০ দশমিক ৬৫ শতাংশ, চট্টগ্রামে ৭৩ দশমিক ৮১ শতাংশ, কুমিল্লায় পাসের হার ৭৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ, রাজশাহীতে ৭৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ, সিলেট বোর্ডে ৭১ দশমিক ৬২ শতাংশ, দিনাজপুরে ৭০ দশমিক ৪৪ শতাংশ, ময়মনসিংহে ৭০.৪৪ শতাংশ ও যশোরে ৬৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ বলে জানা গেছে।

গত ১৭ আগস্ট শুরু হয়েছিল এ বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এ বছর দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় অংশ নেন ১৩ লাখ ৪৪ হাজার ৩৪২ জন শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৮৮ হাজার ৮৮৭ জন এবং ছাত্রী ৬ লাখ ৭০ হাজার ৪৫৫ জন। সারাদেশে মোট কেন্দ্র সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৬৫৮টি এবং মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৯ হাজার ১৬৯টি। এর আগে ২০২২ সালে সব বোর্ড মিলিয়ে পরীক্ষার্থী ছিলেন ১২ লাখ ৩ হাজার ৪০৭ জন। সেই হিসাবে এবার পরীক্ষার্থী বেড়েছে এক লাখ ৫৫ হাজার ৯৩৫ জন ।

যেভাবে জানা যাবে ফল
বেলা ১১টায় পর স্ব স্ব কলেজ ও শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইটে একযোগে পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার শিক্ষার্থীরা কলেজে না গিয়ে ঘরে বসেই ফল দেখতে পারবে। ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফল জানতে শিক্ষার্থীকে প্রথমে এ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।

সেখানে থাকা ফলাফল অপশনে ক্লিক করে রোল ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে সাবমিট করলেই শিক্ষার্থী তার রেজাল্ট শিট দেখতে পারবে। ঢাকা বোর্ডের ওয়েবসাইটে রেজাল্ট ক্লিক করে প্রতিষ্ঠানের ইআইআইএন এন্ট্রি করে প্রতিষ্ঠানভিত্তিক রেজাল্ট শিট ডাউনলোড করা যাবে।

এছাড়া এসএমএসের মাধ্যমে ফল পেতে মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে ইংরেজি অক্ষরে এইচএসসি (HSC) লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে আবার স্পেস দিয়ে পাসের বছর লিখতে হবে। এরপর ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করতে হবে। ফিরতি ম্যাসেজে ফল পাওয়া যাবে।

ঢাকা বোর্ডের একজন পরীক্ষার্থীকে HSC DHA 123456 2023 লিখে পাঠাতে হবে 16222 নম্বরে। সঙ্গে সঙ্গেই ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।

মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে শিক্ষা বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২৩ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে (যেমন HSC Dha 123456 2022 send to 16222)। ফিরতি এসএমএসেই ফল পাওয়া যাবে।

আলিমের ফল পেতে ALIM লিখে স্পেস দিয়ে Mad লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২৩ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। কারিগরি বোর্ডের ক্ষেত্রে HSC লিখে স্পেস দিয়ে Tec লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২৩ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠালে ফিরতি এসএমএসে ফল জানানো হবে।


আরও খবর



বাংলাদেশে আসছে ইনফিনিক্সের ল্যাপটপ ‘ইনবুক’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ৪৩জন দেখেছেন

Image

বাংলাদেশের বাজারে ল্যাপটপ আনতে যাচ্ছে ইনফিনিক্স। সম্প্রতি বাংলাদেশে প্রদর্শন করা হয়েছে তাদের নতুন ল্যাপটপ। ঢাকায় অনুষ্ঠিত সিটি আইটি মেগা ফেয়ার ২০২৩-এ ইনফিনিক্সের স্টলে দুটি মডেলের ল্যাপটপ প্রদর্শিত হয়।

মেলায় প্রদর্শিত ইনফিনিক্স ইনবুক এক্স টু এবং ইনবুক ওয়াই টু প্লাস মডেলগুলো বাংলাদেশের বাজারে আসবে খুব শিগগিরই। আর দামও থাকবে বাজেটের মধ্যেই।

অ্যালুমিনিয়াম এলয় বডির ইনফিনিক্স ইনবুক এক্স টু ল্যাপটপটি দেখতে চিকন ও ওজনে বেশ হালকা। লাল, নেভি ব্লু, ধূসর ও সবুজ এই চারটি রঙে পাওয়া যাবে এই ল্যাপটপ। এটি ১১তম প্রজন্মের কোর আই৩, আই৫ ও আই৭ প্রসেসরের ভ্যারিয়েন্টে বাজারে থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। 

ওয়াই টু প্লাস ল্যাপটপটি এক্স টু ল্যাপটপের চাইতে আকারে কিছুটা বড়। এই ল্যাপটপটি পাওয়া যাবে রূপালি, ধূসর ও নীল রঙে। এটিও থাকবে আই৩, আই৫ ও আই৭ প্রসেসর ভ্যারিয়েন্টে। 

ল্যাপটপের বিস্তারিত এবং ইনফিনিক্স ইনবুক এক্স টু এবং ইনবুক ওয়াই টু প্লাস এর যেসব ভার্সন বাংলাদেশে পাওয়া যাবে সে সম্পর্কিত তথ্য শিগগিরই প্রকাশ করা হবে। 

ইনফিনিক্স ল্যাপটপের যাত্রা শুরু হয় ইনবুক এক্স ওয়ান মডেলের মাধ্যমে। গত ২ অক্টোবর থেকে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হওয়া ছয় দিনব্যাপী সিটি আইটি মেগা ফেয়ারে নতুন মডেলের পিসি, ল্যাপটপ, প্রিন্টার, মনিটর ও সিসি ক্যামেরাসহ নতুন সব প্রযুক্তি পণ্য প্রদর্শিত হয়।


আরও খবর



স্কালোনির সিদ্ধান্ত নিয়ে নতুন মোড়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২৬জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক : চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলকে তাদেরই ঘরের মাঠে হারানো। আর্জেন্টাইন ফুটবলের জন্য বুধবারের সবচেয়ে সবচেয়ে বড় খবর হতে পারতো সেটিই। তবে তা আর হয়নি। ম্যাচ শেষের পর আকস্মিকভাবেই নিজের পদত্যাগের ইঙ্গিত দিয়ে বসেন দলের কোচ লিওনেল স্কালোনি। যার কারণে মহাদেশীয় এবং বৈশ্বিক পর্যায়ে আর্জেন্টিনা সাফল্য, সেই কোচের এমন অপ্রত্যাশিত খবর বেশ চমক দিয়েছিল সবাইকে। !

বলা হচ্ছিল, ফুটবল ফেডারেশন সভাপতি ক্লদিও তাপিয়ার সঙ্গে বেশকিছু ইস্যুতে মনোমালিন্য চলছে স্ক্যালোনির। এমনকি এই নিয়ে বেশ বড় আকারের প্রতিবেদনও প্রকাশ করে আর্জন্টাইন ফুটবলের বড় দুই সূত্র টিওয়াইসি স্পোর্টস এবং ওলে। 

তবে স্কালোনির পদত্যাগ ইঙ্গিতের বার্তা আসার কয়েক ঘন্টা পরেই শোনা যেতে থাকে নতুন খবর। আলবিসেলেস্তে ফুটবলের বিশ্বস্ত সাংবাদিক গ্যাস্টন এদুলের দুই টুইট রীতিমতো স্বস্তির সুবাতাস দিতে পারে নীল-সাদা শিবিরে। টিওয়াইসি স্পোর্টসের এই সাংবাদিক জানান, এখনই পদ ছাড়ছেন না স্ক্যালোনি। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আরও কিছুটা সময় চান তিনি। 

এদুলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, স্ক্যালোনির এমন সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত মানতে পারেননি দলের কোনো খেলোয়াড়ই। নিকোলাস ওতামেন্ডির মত সিনিয়র খেলোয়াড় থেকে ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো বা অ্যালেক্সিস ম্যাক অ্যালিস্টাররাও চাইছেন স্ক্যালোনিকে। এতেই নাকি মন গলেছে গুরুর।

ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচের পর স্কালোনি দলের কোচ হিসেবেই আর্জেন্টিনায় ফিরে যাচ্ছেন। সেখানে গিয়ে পরের কিছুদিন নিজের নিজের মত বিশ্রাম নেবেন তিনি। তখনই নিজের সিদ্ধান্ত নিয়ে পুনরায় ভাবনাচিন্তা করবেন। এরপরেই কেবল জানা যাবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। যদিও এসবের আগেই খেলোয়াড়দের অনেকেই তাকে দলের দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার অনুরোধও করেছেন। 

সবমিলিয়ে হয়ত প্রিয় শিষ্যদের অনুরোধেই দলের সঙ্গে থেকে যাবেন কোচ লিওনেল স্কালোনি। আর সেক্ষেত্রে আর্জেন্টিনাও নিশ্চয়ই পরের দুই বড় আসর নিয়ে স্বপ্ন দেখবে নতুন করে। 

এর আগে গতকাল ব্রাজিলের বিপক্ষে বাছাইপর্বের ম্যাচ শেষে নিজের পদত্যাগের ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন বিশ্বকাপজয়ী এই কোচ। ম্যাচ শেষে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কোচ স্কালোনি বলেন, আমি কী করতে যাচ্ছি তা নিয়ে আমাকে ভাবতে হবে। এই দল আপনাকে পুরোদমে চায়, আপনার সর্বোচ্চ শক্তি থাকতে হবে। জাতীয় দলের এমন একজন কোচ দরকার যার সমস্ত শক্তি আছে।’ 


আরও খবর

৩১৭ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড

বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩