Logo
আজঃ সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
শিরোনাম

বাগমারায় সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৯৪জন দেখেছেন
Image

বাগমারা প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় এ উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ হলরুমে সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদা খানম এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

উপজেলা সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সদস্য সচিব সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমাদুল হাসান এর পরিচালনায় মুঠোফোনের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন, সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির প্রধান উপদেষ্টা রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের সংসদ সদস্য, সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক। 

প্রধান উপদেষ্টা ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক এমপি বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। এদেশে সকল ধর্মের লোকজন বসবাস করে। কেউ যেন অকারণে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে না পারে সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে উদ্দেশ্যে সামাজিক সম্প্রীতি কমিটি গঠন করেছে সেটা যেন বাস্তবায়ন হয়। উপজেলায় সম্প্রীতি-সমাবেশ, উদ্বুদ্ধকরণ সভা, জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে বিদ্যমান আন্তঃধর্মীয় সম্পর্ক ও সামাজিক বন্ধনকে সুসংহত রাখা সম্ভব। সেই সাথে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় ধর্মীয় ও সামাজিক বন্ধনকে এগিয়ে নিতে হবে। সমাজে কোন ভাবেই যেন ধর্মীয় উগ্রবাদ, জঙ্গীবাদ, সহিংসতা ও সন্ত্রাসবাদকে প্রতিহত করার লক্ষ্যে সবাইকে কাজ করতে হবে। এরফলে প্রতিটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সহজ হবে। সকল ধর্মীয় উৎসব যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য ও উৎসাহ উদ্দীপনার মাধ্যমে উদযাপনের পরিবেশ ঠিক থাকবে।  

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সদস্য উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ আক্তার বেবী, বাগমারা থানার এসআই ইব্রাহীম খলিল, বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মতিউর রহমান টুকু, সাধারণ সম্পাদক ও নরদাশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ গোলাম সারওয়ার আবুল, চেয়ারম্যান রেজাউল হক, দপ্তর সম্পাদক নূরুল ইসলাম, ভবানীগঞ্জ বণিক সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম হেলাল, আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল হাসান, ভবানীগঞ্জ ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ জিল্লুর রহমান, উপজেলা মসজিদের ইমাম আব্দুস সোবহান, ভবানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় মন্দির কমিটির সভাপতি সুনিল কুমার কুন্ডু, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কুমার সিংহ, ছাত্রলীগ নেতা নাদিরুজ্জামান মিলন, আব্দুল মজিদ, নারী প্রতিনিধি শামিমা বেগম, ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর প্রতিনিধি সমরেশ কুমার সরকার প্রমুখ। উক্ত আলোচনা সভায় সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 


 



আরও খবর



রুপকথার গল্প হতে চলছে পটুয়াখালীতে বাঁশের চাঁই দিয়ে মাছ শিকারের ফলে

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৭৬জন দেখেছেন
Image

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ  পটুযাখালীতে বাঁশের চাঁই দিয়ে মাছ শিকারের ফলে দেশী প্রজাতির মাছ রুপকথার গল্পেরমত হতে চলছে। এতে বিভিন্ন প্রজাতির দেশী মাছের পোনা ও মাছ উৎপাদন কমে যাচ্ছে। গ্রাম-গঞ্চে বাঁশের তৈরী চাঁই জলাশয়ে পেতে মাছের বংশ নষ্ট করছে অসাধু জেলেরা। 

অন্যদিকে বিভিন্ন খালে ও ডোবায় অধিক হারে কীটনাষক ব্যবহারের কারনে মাছের বংশ বিস্তার করতে পারছেনা। এসব অবৈধ চাঁই প্রতিরোধ করতে না পারলে দেশীয় প্রজাতির মাছ উৎপাদন কমে যাবে। তবুও থেমে নেই  মাছ শিকারে অসাধু জেলেরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দশমিনা উপজেলায় বিভিন্ন হাট-বাজারে অবৈধ ভাবে বাঁশের তৈরী চাঁই বিক্রি করে থাকে স্থানীয় ও সুবিধাভোগী ব্যবসায়ীরা। বৈশাখ থেকে ভাদ্র মাসের শেষ পর্যন্ত উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ধানীজমি ও খাল-বিল, ডোবা-নালাতে বাশেঁর চাঁই পেতে বিভিন্ন প্রজাতির পোনা মাছ ও মাছ শিকার করা হচ্ছে। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী মাছ শিকারের জন্য ব্যবহারিত  নিয়ম কানুন না মেনে অবৈধ ভাবে চাই পেতে মাছ শিকাওে মেতে উঠেছে অসাধু জেলেরা। 

এসকল অসাধু জেলেরা দুইসুতাঁ পরিমান ফাঁকা রেখে বাশেঁর চাঁই তৈরী করে ব্যবহার  করছে। ফলে দেশীয় প্রজাতির মাছের বংশ নষ্ট করছে। আর দেশীয় মৎস্য প্রজনন কমে যাচ্ছে। অন্য দিকে এ অঞ্চলের মানুষের মাছের আকাল দিন দিন বেড়েই চলছে। এমতাবস্থায় বাঁশের চাঁই ব্যবহার দ্রুত বন্ধ না করলে ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে দেশীয় মাছের রুপকথার গল্পেরমত থেকে যাবে।

চাঁই দিয়ে মাছ শিকারকারী মো. ইউনিুছ খা বলেন, কিস্তি এনে আগে রাস্তায় গাড়ি চালাইতাম যাত্রী কম থাকায় বাধ্য হয়ে বাজার থেকে বাঁশের চাঁই কিনে এনেছি। ৬জনের সংসারের খরচ চালাতে এ পথে নামছি। না খেয়ে কয়দিন থাকতে পারি। খালে-বিলে ও ডোবায় পেতে মাছ শিকার করে বাজারে কিংবা মাছের আড়ৎতে বিক্রি করে কোন রকম সংসার চালাই। এ উপজেলায় এরকম কয়েক শ’ চাঁই দিয়ে মাছ শিকার করে সংসার চালায় ।

এ ব্যাপারে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মাহাবুব আলম তালুকদার বলেন, বাশেঁর চাঁই দিয়ে মাছ শিকারের কারনে এ অঞ্চলের দেশী বিভিন্ন প্রজাতির মাছ উৎপাদন কমে যাচ্ছে। তবে এ বাঁশের চাই গুলো অপসারনের লক্ষে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে এবং খালগুলোতে অভিযান পরিচালনা করা হবে।


আরও খবর

বিষখালীর হঠাৎ ভাঙনে ছয় দোকান বিলীন

মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২




পাংশা লেখক ও সংষ্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে কবিতা পাঠের আসর

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

রাজবাড়ী  প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ীর পাংশা নারায়নপুরে কবি সেলিম মাবুদের জলঘরে পাংশা লেখক ও সংষ্কৃতি সংগঠনের আয়োজনে শুক্রবার বাদজুম্মা কবি ও সাংবাদিক কাজী সেলিম মাবুদ এর সভাপতিত্বে কাবতা পাঠের অনুষ্ঠানে প্রধান আতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাংশা সরকারী কলেজের রাষ্টবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ সাহিদুর রহমান। 

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক খোকন কুমার বিশ্বাসের উপস্থাপনায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন পাংশা মহিলা কলেজের অধ্যাপক লেখক সাংবাদিক এম এম জিন্নাহ, মোহাম্মদ ফিরোজ হায়দার, মুহাম্মাদ এবাদক আলী সেখ, সেখ মোঃ সবুর উদ্দিন, মোঃ আবু হাসেম,সন্ধ্যা রানী কুন্ডু, কবি মোল্লা মাজেদ, ষড়জিৎ বিষ্নু শ্যাম , সাংবাদিক সৈকত শতদল প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন মোঃ শহিদুল ইসলাম, আব্বাস উদ্দিন, মোঃ ফিরোজ মাহমুদ মোক্তার, সরদার আবু জালাল, শাকিল মাহবুব, রবিউল ইসলাম। 

অনুষ্ঠানে সিদ্ধান্ত গ্র্রহন করা হয় প্রতি ইংরেজি মাসের ২য় শুত্রবার বিকেলে কবিদের সাথে আলোচনা চা চক্র ও কবিতা পাঠের আসর নিয়মিত অনুষ্ঠিত হবে। 



আরও খবর



বিষখালীর হঠাৎ ভাঙনে ছয় দোকান বিলীন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

কঞ্জন কান্তি চক্রবর্তী:  ঝালকাঠিতে টানা তিন দিন থেমে থেমে বৃষ্টি ও নদীর পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধিতে জেলাজুড়ে দুর্ভোগে পরেছে নিম্ম আয়ের মানুষ।

জেলার চারটি উপজেলায় এপর্যন্ত প্রায় ২০ টিরও বেশি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বিষখালি নদীর রাজাপুর অংশে দেখা দিয়েছে ভাঙ্গন। সোমবার দুপুরে রাজাপুর উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের বিশখালী নদী সংলগ্ন বাদুরতলা বাজারের ৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নদীগর্ভে বিলীন হয়েগেছে।

এ ঘটনার পর থেকে বাদুরতলা এলাকায় নদীতীরের  বাসিন্দাদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সোমবার বিকেলে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছে রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুসরাত জাহান।

ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক নাসির হাওলাদার, জুয়েল শরীফ, শাহজাহান শরীফ, জামাল হাওলাদার, আবু খলিফা এবং বাবুল ঋষি বলেন, দুপুর ৩টার পরে আস্তে আস্তে নদীর পর দেবেযায়। তখন আমরা মালামাল সড়াতে থাকি। বিকেলে হঠাৎ দোকানঘরগুলো ভেসে যায়। তখনও চা এবং মুদি দোকানে কিছু মালামাল ছিলো।

প্রত্যক্ষদর্শী মো. রুহুল আমিন, তরিকুল ইসলাম সুমন ও আব্দুল গফুর বলেন, আমরা দোকান মালিকদের সাথে নিয়ে হাতে হাতে নদী থেকে দোকানঘর ও কিছু মালামাল উদ্ধার তুলে আনতে পেরেছি।

রাজাপুরের মঠবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান শাহ জালাল হাওলাদার বলেন, 'দীর্ঘদিন ধরেই বাদুরতলা বাজারের দোকানগুলো ভেঙে বিলীন হচ্ছিলো। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আজকে হঠাৎ ৬টি দোকান বিলীন হয়ে গেছে। আজকের ঘটনায় প্রায় ৩ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এখনও ওই বাজারের অনেক দোকান ঝুকিতে রয়েছে। কয়েক দফা জিও ব্যাগ ফেলেও ভাঙনরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। দ্রুত স্থায়ী বাঁধ নির্মান করা প্রয়োজন।'

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা 'নুসরাত জাহান খান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থদের সাথে কথা বলেছি তাদের জন্য পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।'


আরও খবর



বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একধাপ এগিয়ে যেতে চান সাইদুর রহমান চৌধুরী

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৯৫জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ প্রকৃতি ও অপরূপ সৌন্দর্যের নীলাভূমি বারহাট্টা উপজেলার চিরাম ইউনিয়ন, একটি মনোমুগ্ধকর ইউনিয়ন, এই ইউনিয়নের হয়েছে ছোট বড় কয়েকটি দৃশ্যমান বিল যা দেখলে যে কেউ প্রকৃতির প্রেমে পাগল হয়ে যায়, সেজন্যই প্রতি নিহতই এই এলাকায় ঘুরতে আসে অনেক পর্যটক। এই ইউনিয়নের একজন আদর্শবান চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান চৌধুরী চিরাম ইউনিয়ন বাসীর সেবা করার উদ্দেশ্যেই যিনি জনগণের দ্বারে দ্বারে কাজ করে যাচ্ছেন। সেই ধারাবাহিকতায় তিনি গত ইউপি নির্বাচনে নৌকা মার্কা নিয়ে অংশগ্রহণ করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর থেকে বিপুল ভোট পেয়ে চিরাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এছাড়া আজ অবধি তিনি কোনো অন্যায় অবিচারের সঙ্গে আপোষ করেননি। দৃঢ় অবস্থানের কারণে নিজ নির্বাচিত এলাকায় দিনের পর দিন তার জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। বর্তমানে যার বিকল্প হিসেবে অন্য কাউকে দেখছে না ইউনিয়নবাসী। সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া সেই মেধাবী ও পরিশ্রমী মানুষটি নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলার চিরাম ইউনিয়ন পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান চৌধুরী।

বারহাট্টা উপজেলার চিরাম ইউনিয়ন এক সময়ের অবহেলিত এই অঞ্চলটির সাধারণ মানুষের চলাচলের জন্য তেমন কোনো পাকা কিংবা আরসিসি ঢালাইয়ের রাস্তা ছিল না। ফলে চলাচলের সময় নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতেন তারা। জনসাধারণের এই দুর্দশা আর দুর্বস্থা দেখে জনগণের সেবা করার উদ্যেশে ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে ইতোমধ্যে এই ইউনিয়নের রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ দৃশ্যমান হচ্ছে।পাল্টে দিচ্ছেন সম্পূর্ণ ইউনিয়নের সামগ্রিক চিত্র।

চিরাম ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় আরসিসি ঢালাইয়ের রাস্তা এবং সঙ্গে ড্রেনেজ ব্যবস্থার কাজ চলমান রয়েছে, দেখে আপনার মনে হতে পারে আপনি কোনো মডেল টাউনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন। তাই এই ইউনিয়নকে একটা মডেল ইউনিয়ন বলা যেতেই পারে। উন্নয়ন কাজের পাশাপাশি মহামারি করোনাকালীন পরিস্থিতির শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত এই ইউনিয়নের কর্মহীন ও হতদরিদ্র মানুষের পাশে ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্য এবং স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী দেওয়াসহ বিভিন্ন মানবিক কর্মকাণ্ডের কারণেই তিনি আজ জননন্দিত। অন্যদিকে তিনি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনের পর থেকে এলাকায় মাদক এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো-টলারেন্স নীতি অবলম্বনে কাজ করে চলেছেন।

এলাকার কয়েকজন সাধারণ মানুষের সাথে কথা হলে তারা বলেন , চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান চৌধুরী চিরাম ইউনিয়নের উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন। ইউনিয়নবাসী বলেন সাইদুর রহমান চৌধুরী চেয়ারম্যানের বিকল্প হিসেবে অন্য কাউকে ভাবতে চাই না।

চিরাম ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সাইদুর রহমান চৌধুরী চেয়ারম্যান এর বিকল্প কোন চেয়ারম্যান তারা চায়না। তারা শুধুই বলে বিগত ৫০ বছরেও সেই রকম কোনো উন্নয়ন হয় নাই। যা সাইদুর রহমান চৌধুরী চেয়ারম্যান করে দেখাচ্ছেন, আমরা উনার মত চেয়ারম্যানকে বারবার চেয়ারম্যান হিসেবে চিরাম ইউনিয়নে দেখতে চাই।

চিরাম ইউনিয়ন পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান নৌকার মাঝি সাইদুর রহমান চৌধুরী জানান, আমি ইউনিয়ন বাসীর ভালোবাসা নিয়েই কাজ করতে চাই তাদের সাথে নিয়েই অনেক দূর এগিয়ে যেতে চাই। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্ন পূরণ করতে চাই। জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী, আমি আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কার একজন চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে আমি আমার লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই আমার ইউনিয়ন বাসীর সহযোগিতায়।


আরও খবর



উদ্বোধন হতে যাচ্ছে দেশের প্রথম ছয়লেনের ‘কালনা সেতু’

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১২২জন দেখেছেন
Image

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধিঃস্বপ্নের ‘পদ্মা সেতু’র পর এবার উদ্বোধন হতে  যাচ্ছে দেশের প্রথম ছয়লেনের ‘কালনা সেতু’র। কালনা সেতুর উদ্বোধন হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলবাসীর আরেকটি স্বপ্নপূরণ হবে।

সেতুর মূল কাজ শেষ হওয়ার পর এখন ছোটখাটো কিছু কাজ চলছে। লাইটিংসহ চলছে দৃষ্টিনন্দন কাজ। আগাামী  ৩০ আগস্টের মধ্যে যানবাহন চলাচলের জন্য সেতু প্রস্তুত করা হচ্ছে।


আরও খবর