Logo
আজঃ রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২
শিরোনাম

নেত্রকোনায় ভরা মৌসুমে ইঁদুরের পেটে কৃষকের স্বপ্নের ফসল, মিলছে না কোনো প্রতিকার

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ১০০জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোনা জেলার সকল উপজেলার সকল অঞ্চলে বর্তমানে ইঁদুরের উৎপাতের কৃষকের স্বপ্ন এখন ভেস্তে গেছে। এখন চলছে আশ্বিন মাস। সবুজে সবুজে ভরে উঠছে পুরো নেত্রকোনা অঞ্চলের মাঠ। সেই সঙ্গে রঙিন হয়ে উঠছে প্রান্তিক কৃষকের স্বপ্ন। মাঠজুড়ে এখন সবুজ স্বপ্নের ছড়াছড়ি। এমন সময় আমনের শেষ মুহূর্তে ক্ষেতের কাঁচা ধান কেটে সাবাড় করে ফেলছে ইঁদুরের দল। ইঁদুরের আক্রমণে ক্ষতির মধ্যে পড়েছেন কৃষকরা। 

নেত্রকোনার কৃষকরা জানান, আমনের মাঝামাঝি সময়ে এসে গোড়া পচনসহ নানা রোগ-ব্যাধিতে ভরপুর ছিল। অতিরিক্ত কীটনাশক প্রয়োগ করে কিছুটা কমেছে। এরপর মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে শুরু হয়েছে ইঁদুরের অত্যাচার। ক্ষেতে বিভিন্ন পদ্ধতিতে বিষমাখা টোপ, আতপ চালের টোপ কিংবা ফাঁদ পেতেও কোনো প্রতিকার মিলছে না। ক্ষেত থেকে ইঁদুর দূর করতে না পেরে অসহায় হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষি অফিসের পুরনো পদ্ধতির পরামর্শে কোনো কাজ হচ্ছে না। 

তাই সরকারকে ইঁদুর দমনে নতুন প্রদ্ধতি আবিষ্কার করতে হবে। যেন সব কৃষক ঈঁদুর থেকে রক্ষা পান। তা না হলে ক্ষেতের অর্ধেক ফসল ইঁদুরের পেটে চলে যাবে। লোকসানে পড়বেন প্রান্তিক কৃষকরা।  

জেলা বিভিন্ন ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা জানান, শুধু বিষটোপ নয়, কলাগাছ, লাঠি কিংবা বাঁশের কঞ্চিতে পলিথিন বেঁধে দিলে ও রাতে ফসলের ক্ষেতে টায়ার পোড়ানোর পদ্ধতি ব্যবহার করলে ইঁদুর কিছুটা ভয়ে ক্ষেত ছেড়ে চলে যাবে। কৃষকদের দেওয়া হচ্ছে পরামর্শ।

নেত্রকোনা জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে,  চলতি মৌসুমে নেত্রকোনায় আমনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২২ হাজার ৪৩৫ হেক্টর জমিতে। তবে কত হেক্টর জমিতে ইঁদুর লেগেছে তার কোনো তথ্য নেই কৃষি অফিসে। 

কেন্দুয়া উপজেলার পাইকুরা ইউনিয়নের কৃষক আবু হেনা বলেন, আমার প্রায় পাঁচ বিঘা জমির কিছু কিছু জায়গায় পৃথকভাবে ইঁদুর ধান নষ্ট করেছে। আমার জমির মতো আমাদের গ্রামের কবির আলী, পাইকুরা গ্রামের সাদিকুল সারি জমিতে কাঁচা ধান কেটে ফেলছে ইঁদুরে। আমরা কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। 

পূর্বধলা উপজেলার ধলা গ্রামের কৃষক নূর মোহাম্মদ বলেন, আমার জমিতে ধান কাটছে ইঁদুর। বিভিন্নভাবে পদ্ধতি অবলম্বন করছি ইঁদুর তাড়ানোর জন্য। ধলা গ্রামের আজগর আলী, রাব্বানী, মতিনসহ অনেক কুষক জমিতে ইঁদুরের উৎপাতে অতিষ্ঠ। মাঠের প্রায় প্রত্যেক কৃষকের কিছু না কিছু জমির ধান ইঁদুরে কেটে ফেলেছে।  

ইঁদুরে ক্ষতিগস্ত কৃষক সাহতা গ্রামের মামুন, হেলুচিয়া কুমারপাড়া গ্রামের মিঠু বলেন, কর্তব্যরত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ গ্রহণ করে ইঁদুর দমন করা যাচ্ছে না।  

ইঁদুরের এমন সমস্যা শুধু দুই-চারজন কৃষকের নয়, প্রায় জেলার সবার এই সমস্যা। কৃষকের কাঁচা-আধাপাকা ধান কেটে সাবাড় করে ফেলছে।

নেত্রকোনা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ নূরুজ্জামান বলেন, ইঁদুর দমন করতে আমরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে কৃষকদের নিয়ে ইঁদুর দমনের পদ্ধতি শিখিয়ে দিচ্ছি। আমার একার পক্ষে তো সম্ভব নয়। সকল উপজেলার সকল কৃষি কর্মকর্তারাও অনেক পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সবাইকে সচেতন হতে হবে। তাহলে আমরা সফল হব ইঁদুর দমন করতে। কত হেক্টর জমিতে ইঁদুর লেগেছে এমন কোনো সঠিক তথ্য আমাদের কাছে এখন পর্যন্ত নেই।



আরও খবর



ইউক্রেনের পাশ থেকে কি সরে যাবে ইউরোপ?

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৮৬জন দেখেছেন
Image

দীর্ঘ আট মাস পেরিয়ে গেছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এরই এই যুদ্ধে মধ্যে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে ইউক্রেন। হাতছাড়া হয়েছে লুহানস্ক, ডোনেটস্ক, খেরসন ও জাপোরিঝঝিয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ চারটি অঞ্চল। যদিও এগুলো পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, তবে এসব ভূখণ্ড রুশ ভূমির সঙ্গে রাখার তীব্র প্রচেষ্টা চালাচ্ছে রাশিয়া। ইতোমধ্যে খেরসনে বিপজ্জনক অভিযানের ঘোষণা দিয়েছে রুশ কর্তৃপক্ষ। এ লক্ষ্যে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বেসামরিক লোকজনকে।

এদিকে, দীর্ঘ এই যুদ্ধে ইউক্রেনকে পাশে থেকে সহায়তা করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপী ইউনিয়নের দেশগুলো। যুদ্ধে সহায়তা করতে গিয়ে অর্থনৈতিক টালমাটাল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে ইউরোপজুড়ে। বেসামাল হয়ে পড়েছে মূল্যস্ফীতি। এমতাবস্থায় ইউক্রেনের পাশ থেকে ইউরোপের সরে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ইউরোপে শুরু হয়েছে শীতকাল। যুদ্ধের কারণে ওই অঞ্চলে দেখা দিয়েছে জ্বালানিসংকট। হু হু করে বাড়ছে জিনিসপত্রের দাম। ফলে মূল্যস্ফীতি চরমে পৌঁছেছে। যুদ্ধ আরও দীর্ঘায়িত হলে এই সংকট আরও ভয়াবহ রূপ নেবে। তখন অর্থনৈতিক পরিস্থিতি আরও বেসামাল হয়ে পড়বে। এমতাবস্থায় ইউক্রেনকে সহায়তা দেওয়া বন্ধ করতে পারে ইউরোপ- এমন আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল–জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউরোপ অনেকটাই রাশিয়ার জ্বালানিসম্পদের ওপর নির্ভরশীল। ফলে ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়ার ওপর বিপুল নিষেধাজ্ঞা জারি সত্ত্বেও দেশটিকে দমন করা যায়নি। আর ইউরোপের এই জ্বালানি নির্ভরতার কারণেই ইউরোপের যেসব দেশ ইউক্রেনের পাশে দাঁড়িয়েছে, দেশগুলোকে ধরাশায়ী করতে জ্বালানিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে মস্কো।

যদিও ইউরোপের ওই দেশগুলোও বসে নেই। রাশিয়া থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানি বন্ধ করতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে তারা। এখন তাদের অগ্রাধিকারের শীর্ষে রয়েছে রাশিয়ার তেল–গ্যাসের বিকল্প কোনও উৎস খোঁজা। শুধু তাই নয়, চলতি শীতে সংকট মোকাবিলায় জ্বালানি সাশ্রয়েও কৌশলও অবলম্বন করছে ইউরোপের দেশগুলো।

ইতোমধ্যে সংকট মোকাবিলায় বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধের পরিকল্পনা থেকে সরে এসেছে জার্মানি। চেকোস্লোভাকিয়ায় সরকারি অফিসগুলোতে পুরোনো বাল্ব সরিয়ে বিদ্যুৎ–সাশ্রয়ী এলইডি বাল্ব ব্যবহার করা হচ্ছে। ইতালিতে ঘরের ভেতরের তাপমাত্রা ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি না রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে বলা হয়েছে, কম তাপে খাবার রান্না করতে। ইউরোপের নামীদামি নানা ব্র্যান্ডের দোকানগুলোতে সময়ের আগেই বৈদ্যুতিক বাতি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে চলতি নভেম্বরে ৮০ শতাংশ গ্যাস মজুত করার লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছিল ইউরোপের দেশগুলো। সেই লক্ষ্যও পূরণ হয়েছে। অনেক দেশ ৮০ শতাংশেরও বেশি গ্যাস মজুত করেছে। এরপরও সামনের কঠিন শীতের মাসগুলোতে ইউরোপ ইউক্রেনের পাশে থাকবে কি না, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

কেননা, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা দিয়ে বলেছেন, “আমাদের স্বার্থের বিরুদ্ধে গেলে আমরা কিছুই সরবরাহ করব না। গ্যাস, কয়লা, তেল—কিছুই না।” সুতরাং যুদ্ধে ইউক্রেনকে সহায়তা করে রাশিয়ার কাছ থেকে জ্বালানি সহায়তার আশা করা  অবাস্তব।

অন্যদিকে, ইউরোপের দেশগুলোর হাতে মজুত থাকার পরও তাদের রাশিয়া থেকে পাইপলাইনে করে আসা গ্যাসের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে মনে করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিরাপত্তাবিষয়ক বিশেষজ্ঞ রাফায়েল লস। আল–জাজিরাকে তিনি বলেন, যদি রাশিয়া থেকে গ্যাস সরবরাহে বাধা আসে, তাহলে ইউরোপের দেশগুলোর বাসাবাড়ি ও শিল্পকারখানায় এর প্রভাব পড়বে।

তাছাড়া উত্তর আমেরিকা, উপসাগরীয় দেশগুলো ও নরওয়ে থেকে আসা জ্বালানি রাশিয়ার জ্বালানির বিকল্প হিসেবে পুরোপুরি চাহিদা পূরণ করতে পারবে না। নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ রাফায়েল লস বলেন, এমন পরিস্থিতিতে পুতিন আশা করছেন, শীতের প্রকোপ থেকে বাঁচতে ইউক্রেনের বিপুল পরিমাণ বাসিন্দা আশপাশের দেশগুলোতে পাড়ি জমাবেন।

তিনি আরও বলেন, পুতিন যদি চলমান ‘জ্বালানিযুদ্ধ’ কাজে লাগিয়ে ইউরোপের দেশগুলোতে জনবিক্ষোভ শুরু করাতে পারেন; অভিবাসনসংকট জোরদার করতে পারেন এবং ভুয়া তথ্য ছড়ানোয় সফল হন, তাহলে এর প্রভাবে ইউক্রেনে ইউরোপের দেশগুলোর সহায়তার হার কমে যেতে পারে। আর পুতিন এটাই চাইছেন।

আর এক্ষেত্রে পুতিন সফল হলে ইউক্রেনের পাশ থেকে সরে দাঁড়াতে পারে ইউরোপের দেশগুলো। 


সূত্র: আল জাজিরা



আরও খবর



ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে নবাগত ইউএনও'র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৮৯জন দেখেছেন
Image
মোঃ মজিবর রহমান শেখ: ৭ নভেম্বর সোমবার সকাল ১০.৩০ টায় হরিপুরে নবাগত ইউএনও' এ কে এম শরীফুল হক এর আহবানে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে হরিপুর উপজেলার স্থানীয় জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, উপজেলা পর্যায়ের সকল কর্মকর্তাবৃন্দ,গণমাধ্যম প্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান ও এনজিও প্রতিনিধি সহ  আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায়  উপস্থিত ছিলেন হরিপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ,অধ্যাক্ষ  জিয়াউল হাসান মুকুল, সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

নবাগত হরিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম শরীফুল হক, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক  এস এম আলমগীর, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বাবূ নগেন কুমার পাল, মোসলেম উদ্দিন কলেজের অধ্যক্ষ  মোঃ সৈয়দুর রহমান, হরিপুর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান ও হরিপুর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি  মোঃ আব্দুল কাইয়ুম পুষ্প , ঠাকুরগাঁও জেলা পরিষদ সদস্য  মোঃ আনিসুজ্জামান শান্ত, কৃষি বিষয়ক কর্মকর্তা রুবেল হোসেন, শিক্ষা কর্মকর্তা  মোঃ রায়হানুল হক, হরিপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  মোঃ মনোয়ারুল ইসলাম রিপন, হরিপুর থানা এস আই মোঃ আবু ঈসা, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ ও বিজিবির কোম্পানি কমান্ডারগণ।  উক্ত মতবিনিময় সভার আলোচনায় ভূমি সমস্যা, কৃষি বিষয়ে সংকট নিরসন, শিক্ষা ক্ষেত্রে অচলাবস্থা, চোরাচালান, মাদক দ্রব্য , শিশুপার্ক ,সাহিত্য সাংস্কৃতি বিষয়ে সংকট ,কিশোর অপরাধ,বাল্য বিবাহসহ বিবিধ সমস্যা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। আলোচনায় নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, "আমি অত্র এলাকার উন্নয়নে সাধ্যানুযায়ী আন্তরিকভাবে কাজ করে যাবো, এলাকার উন্নয়নে স্ব স্ব জায়গা থেকে দায়িত্বশীল ভূমিকা আশা করছি, আপনাদের সবার সার্বিক সহযোগিতা কামনা করি"।

সম্মানিত উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয় হরিপুর উপজেলার গর্বিত সাফল্য আলোকপাত করেন, তবে হরিপুর উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর অগ্রগতিতে গুরুত্বারোপ করার  আহ্বান জানান। আরো উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ও বিভিন্ন সুশীল সমাজের বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গসহ বিভিন্ন স্তরের সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী-কর্মকর্তাবৃন্দ, ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া

উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যবস্থ্যাপনায় নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
Image

মহাসিন শেখ,টুংগিপাড়া প্রতিনিধিঃ এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময়ের উদ্যোগে টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যবস্থ্যাপনায় অনুষ্ঠিত নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ। 

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শেখ হেলাল উদ্দীন এমপি, শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম কামাল হোসেন, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন।

নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় সভাপতিত্ব করেন টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবুল বাসার খায়ের। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন অতিথিগন।



আরও খবর



পাকিস্তানকে ১৫৩ রানের টার্গেট দিল নিউজিল্যান্ড

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৭৯জন দেখেছেন
Image

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে পাকিস্তানকে ১৫৩ রানের টার্গেট দিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শাহিন আফ্রিদিদের বোলিং তোপে হাত খুলে মারতে পারেনি কিউইরা। পাওয়ার প্লেতে ২ উইকেট হারিয়ে শেষ পর্যন্ত তুলতে পেরেছিল ৩৮ রান।

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস সেই ধাক্কা সামলাতে গিয়ে ৪২ বলে ৪৬ রানের মন্থর ইনিংস খেলেছেন। তবে ৩৫ বলে ৫৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেছেন ডেরিল মিচেল। 


আরও খবর

নেইমার কী পেলে হতে পারবেন?

বৃহস্পতিবার ২৪ নভেম্বর ২০২২

কাতার বিশ্বকাপই কি শেষ নেইমারের ?

সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২




মিথ্যা মামলার ছোবল থেকে রেহাই পেতে দিলরুবা বেগমের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৯৩জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাড়ির পানি নিষ্কাশনের ঘটনা নিয়ে মিথ্যা মামলা নিয়ে জেলহাজতে বাস করছেন রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানার ডিঙ্গাডোবা ঘোষমহাল এলাকার সোনা আমিন বাবু।

৮ ডিসেম্বর দুপুরে রাজশাহী মডেল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে দিলরুবা বেগম অভিযোগ করে বলেন  তার প্রতিবেশি পুলিশের অবসর প্রাপ্ত উপ পরিদর্শক (এস আই) আকতার জোরপুর্বক তাদের বাড়ির পানি নিষ্কাশনের পাইপটি ভেঙ্গে ফেলেন। এই ঘটনায় আকতারকে বাধা দিতে গেলে আকতার রাজপাড়া থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক ( এস আই ) মাহাফুজকে নিয়ে এসে হুমকি ধামকি প্রদান করেন।

দিলরুবা বেগম বলেন এমন ঘটনা নিয়ে দিলরুবা বেগম রাজপাড়া থানায় মামলা করতে গেলে রাজপাড়া থানা পুলিশ তার মামলা গ্রহণ করে নাই। আকতার বাদি হয়ে  দিলরুবা বেগমের স্বামী সোনা আমিন বাবু তার শ্বশুর ৭৫ বছরের বৃদ্ধ বনি আমিন,দিলরুবা বেগম সহ কয়েকজনকে আসামি করে একটি নাটকীয়  চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় দিলরুবা বেগম আদালত থেকে জামিনে বেরিয়ে আসলেও তার স্বামী সোনা আমিন বাবু রয়েছেন জেলহাজতে।

তিনি বলেন সংসারের একমাত্র উপার্জনের ব্যক্তি মিথ্যা মামলায় জেলহাজতে থাকার কারনে আমরা মানবেতর জীবন যাপন করছি। অপর দিকে প্রভাবশালী আকতার বিভিন্ন ভাবে আমাদের আবার হুমকি ধামকি প্রদান করছেন।

৭৫ বছরের বৃদ্ধা বনি আমিন সংবাদ সম্মেলনে বলেন এই বয়সে আমি নড়াচড়া করতে  রিতিমত হিমশিম খাই, আর আমার নামে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা করে আমাকে  কোর্টে নিয়েছেন এর জন্য আল্লাহকে বিচার দিয়েছি।

দিলরুবা বেগমের মেয়ে বলেন আকতার পুলিশের চাকরি থেকে অবসরে যেয়েও তার ভেতর থেকে পুলিশের ভাব যায়নি। তিনি বলেন ডিঙ্গাডোবা ঘোষ মহাল এলাকায় তার আচরনে সাধারণ মানুষ অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। এমন ষড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা মামলার সঠিক তদন্ত দাবি করেন তিনি। একজন অবসর প্রাপ্ত পুলিশ সদস্য থানা পুলিশের  সাথে আতাত করে কোন  নিরহ মানুষকে  যেন মিথ্যা ষড়যন্ত্র মুলক মামলায় ফাঁসাতে না পারেন সেই বিষয়ে পুলিশের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন নির্যাতিতার মেয়ে।

অপর দিকে রাজপাড়া থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এস আই ) মাহফুজ তাদের বাড়িতে জোরপুর্বক প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করা সহ সরাসরি আকতারের পক্ষে (এস আই) মাহফুজ  কাজ করার বিষয় নিয়ে শংকিত রয়েছে দিলরুবার পরিবার। তাদের ধারণা যে কোন সময় তাদের আবারো কোন নাটকীয় মামলায় হয়রানি করা হবে।

জানতে চেয়ে রাজপাড়া থানার উপ পরিদর্শক ( এস আই ) মাহফুজকে মুঠো ফোনে ফোন করলে তিনি বলেন আকতার রহমানের করা মামলায় আমি তদন্তে গুয়েছি এটি সত্য। তবে হুমকি ধামকির কোন ঘটনা ঘটেনি।


আরও খবর