Logo
আজঃ রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২
শিরোনাম

অসামান্য সেবা পদকে ভুষিত হলেন পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যান

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: দেশের তৃতীয় বৃহত্তর গভীর সমুদ্র পায়রা বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মাদ সোহায়েল অসামান্য সেবা পদকে ভ‚ষিত হলেন।

নৌবাহিনীতে চাকরিরত অবস্থায় নৌবাহিনী ও দেশের উন্নতিকল্পে প্রশংসনীয় অবদান ও দক্ষ ব্যবস্থাপনার জন্য গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ২০২১ সালের জন্য তাকে এ অসামান্য সেবা পদকে ভ‚ষিত করা হয়েছে। ২১ নভেম্বর সোমবার দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে সশস্ত্র বাহিনী দিবস-২০২২ উপলক্ষে নৌসদর “সাগরিকা” হল রুমে এ পদক দেয়া হয়।

বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মনোনীত প্রতিনিধি হিসেবে নৌবাহিনী প্রধান তাকে এ পদক পরিধান করিয়ে দেন। এসময় নৌবাহিনী প্রধানের সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন রিয়ার এডমিরল মোহাম্মদ মোজ্জাম্মেল হক, সহকারী প্রধান (পার্সোনাল) রিয়াল এডমিরল খন্দকার মিসবা-উল-আজিম, কমান্ডার ঢাকা নৌ-অঞ্চল এবং অন্যান্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগন।

জানা যায়, রিয়াল এডমিরল মোহাম্মদ সোহায়েল ইতিপূর্বে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কৃতিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর নির্মাণ কাজের প্রকল্প পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এসময় বাংলাদেশের নৌশক্তির অতীত ইতিহাসের নিপুণ গবেষণার মাধ্যমে বাংলাদেশ নৌশক্তির পাঁচ হাজার বছরের গৌরবময় ইতিহাস অত্যন্ত সুনিপণভাবে জাদুঘরে তুলে ধরেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাফল্য সংক্রান্ত নিদর্শন জাদুঘরে তুলে ধরেন। তিনি মেরিটাইম বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের অসাধারণ হলোগ্রাফী তৈরী করে দেশে-বিদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেন।

এছাড়াও অসামান্য সেবা পদক প্রাপ্ত রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মাদ সোহায়েল নৌবাহিনীর অপারেশন ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি সাবমেরিন সংরক্ষন এবং বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সার্বিক উন্নতি ও নিরাপত্তা বিধানে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

তিনি নেভাল স্কুল অব ইন্টেলিজেন্স প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি নৌবাহিনীর আধুনিকায়ন ও উন্নয়নে অনবদ্য ভ‚মিকা পালন করেন। এসকল কারণে বাংলাদেশ সরকার তাকে এ পদকে ভ‚ষিত করেন। বর্তমানে তিনি পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।






আরও খবর



নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে ধনু নদীর তীরে ঐতিহ্যবাহী কাঠের বাজার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ১৪জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ  চির সবুজের নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক অপরুপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি নেত্রকোনা,এ জেলার মাঝে অভিরাম বয়ে চলেছে অনেক সুন্দর সুন্দর নদী। জেলার ধনু নদীর তীর ঘেঁষা খালিয়াজুরী উপজেলার চাকুয়া ইউনিয়নের একটি গ্রাম আর এই গ্রামেই রয়েছে জেলার ঐতিহ্যবাহী কাঠের বাজার লেপসিয়া। বহু প্রাচীন এ বাজারে নদীর পাড়েই নেত্রকোনা জেলার সবচেয়ে বড় কাঠের মোকাম। ধনু নদীর পূর্ব পাড়ে লেপসিয়া গ্রামের মোহনায় বিশাল এলাকা জুড়ে চলে কাঠের এ বাণিজ্য।

এক সময়ে সুন্দরীকাঠের বিশাল বাজার হিসাবে পরিচিত নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুরী উপজেলার চাকুয়া ইউনিয়নের লেপসিয়া এখন দেশীয় গ্রামীণ কাঠের সর্ববৃহৎ ভাসমান বাজার।গোল কাঠ বিক্রির জন্য নিয়ে নেত্রকোনা জেলাসহ বিভিন্ন উপজেলার ছোট ও মাঝারি কাঠ ব্যাবসায়ীরা আসেন এই বাজারে আর সেই কাঠ স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে নৌ-যোগে এবং ট্রাকের মাধ্যমে চলে যায় রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। ভাসমান এ কাঠ বাজারে প্রতি শনিবার প্রায় কোটি টাকার কাঠ বেচাকেনা হয়।কালের বিবর্তনে দেশীয় কাঠের ব্যবসা শুরু করে এখানকার ব্যবসায়ীরা। যা ধীরে ধীরে রূপ নেয় নেত্রকোনার সর্ববৃহৎ ভাসমান কাঠের বাজারে।

লেপসিয়া ধনু নদীর পাশেই রয়েছে শালদীঘা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও মুক্তিযোদ্ধাচরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে একটি ব্যবসায়িক বলয়। ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা জেলার বিভিন্ন উপজেলায় হাজার হাজার ব্যবসায়ী কাঠ বিক্রি করেন ওই বাজারে। লেপসিয়া বাজারে কেনা কাঠ চেরাই করে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন উপজেলার হাটবাজারে নিয়ে বিক্রি করা হয়।

ব্যবসা-বাণিজ্য সমৃদ্ধ খালিয়াজুরী উপজেলাটি গোটা দেশে ব্যাপক পরিচিতি পেলেও কিছু অসাধু ব্যাক্তির পদচারণায় বর্তমানে ব্যবসায়ীদের দুর্দিন যাচ্ছে।

ধনু নদীর পশ্চিম পারে ও আরেকটি বাজার রয়েছে আদর্শ নগর। এখানেও চলে কাঠের জমজমাট ব্যবসা। ধনু নদীর মধ্যে বড় বড় নৌকা বোঝাই কাঠ আর কাঠ। কখনও কখনও নানান রকম গাছ পানিতে ভাসিয়েও রাখা হয়। দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে কাঠ ব্যবসায়ীরা এখানে আসেন কাঠ কিনতে। বড় বড় কার্গো জাহাজ বোঝাই করে সেসব কাঠ পাঠিয়ে দেওয়া হয় দেশের বিভিন্ন স্থানে।

দেশের সর্ববৃহৎ কাঠের বাজার লেপসিয়াতে একটি ট্রাক লোড পয়েন্ট নির্মাণ করা হলে বাড়বে ব্যবসার প্রসার, কমবে কাঠের মূল্য ও পরিবহন খরচ, বাঁচবে সময়। তাই সরকারের কাছে একটি ট্রাক লোড পয়েন্টের দাবী লেপসিয়া বাজার কাঠ ব্যবসায়ীদের।

এবিষয়ে জানতে চাইলে চাকুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন,লেপসিয়া বাজারটি জেলার ভিতরে কাঠের জন্য বিখ্যাত, এই বাজারে প্রতি শনিবার দেশের দূর দূরান্ত থেকে শত শত কাঠ ব্যবসায়ী এই বাজারে কাঠ বেচাকেনা করে,প্রতি শনিবার এই বাজারে কোটি কোটি টাকার কাঠ বেচাকেনা হয়।


আরও খবর



খেরসনে যুদ্ধাপরাধ করেছে রাশিয়া: জেলেনস্কি

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৬৩জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি দাবি করেছেন, রাশিয়ার সেনারা খেরসনে যুদ্ধাপরাধ করেছে। তিনি জানান, রুশ সেনাদের দখলকৃত খেরসনে প্রায় চার শতাধিক যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত হয়েছে। তদন্তকারীদের অনুসন্ধানে এই তথ্য উদঘাটিত হয়েছে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে ইউক্রেনের বুচা, ইজিয়াম ও মারিউপোলে গণকবর পাওয়া গেছে। এই নৃশংসতার জন্য রাশিয়ান সেনাদের দায়ী করেছে ইউক্রেন। 

তবে এখন পর্যন্ত বিবিসি এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করতে পারেনি। অভিযোগ অস্বীকার করে মস্কো জানিয়েছে, মস্কোর সেনারা ইচ্ছাকৃতভাবে কোনও সাধারণ নাগরিককে হত্যা করেনি।

খেরসন স্বাধীন হয়ে গেলেও ইউক্রেন কর্তৃপক্ষ শহরটিতে কারফিউ জারি করেছেন। খেরসনে যাওয়া আসা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এক ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি জানান, রুশ সেনারা দেশের যেসব অঞ্চলে প্রবেশ করেছে সেখানেই নৃশংসতা করেছে। তারা খেরসনেও এই একই কাজ করে গেছে। তারা অবশ্যই এসব হত্যাকাণ্ডের বিচার করবেন।

ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেন আগ্রাসনের পর খেরসনই একমাত্র অঞ্চল যা দীর্ঘদিন ধরে রুশ সেনাদের দখলে ছিলো। গত সেপ্টেম্বরে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন ক্রেমলিনের একটি অনুষ্ঠানে খেরসনসহ আরও তিনটি অঞ্চলকে রাশিয়ার ভূখণ্ড বলে দাবি করেন। কিন্তু শুক্রবার (১১ নভেম্বর) খেরসনকে ইউক্রেন সেনারা স্বাধীন করেছেন।

প্রায় ৩০ হাজার রাশিয়ান সেনাকে অপসারণ করার পর খেরসনের অফিসিয়াল কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে অনেকের মনে আশঙ্কা রয়েছে, কিছু সংখ্যক রাশিয়ান সেনা এখনো ছদ্মবেশে ইউক্রেনে লুকিয়ে থাকতে পারে।

এ বিষয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট জানান, রাশিয়ার সেনাদের আটক করা হয়েছে। তবে যারা এসব নৃশংসতার পেছনে আছেন তাদের শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। ইউক্রেনের সেনারা ইন্টারনেট ও টিভি সংযোগ করার জন্য কাজ করছেন। যতদ্রুত সম্ভব পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে।



আরও খবর



টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া

উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যবস্থ্যাপনায় নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
Image

মহাসিন শেখ,টুংগিপাড়া প্রতিনিধিঃ এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময়ের উদ্যোগে টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যবস্থ্যাপনায় অনুষ্ঠিত নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ। 

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শেখ হেলাল উদ্দীন এমপি, শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম কামাল হোসেন, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন।

নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় সভাপতিত্ব করেন টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবুল বাসার খায়ের। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন অতিথিগন।



আরও খবর



সরকার রিজার্ভের টাকা নিয়ে অলস বসে থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
Image

রিজার্ভ নিয়ে সমালোচকদের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রিজার্ভের টাকা দিয়ে অলস বসে থাকবেন না বরং তা জনগণের কল্যাণে ব্যবহার করবেন। রিজার্ভের টাকা নিয়ে অলস বসে থাকা ঠিক হবে না। আমাদের জনগণের ভোগান্তি কমাতে হবে।’

সোমবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) নবনির্বাচিত ৫৯ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের শপথবাক্য পাঠ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অথিথির ভাষণে এ কথা বলেন এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে জেলা পরিষদের মোট ৬২৩ জন সদস্যও শপথ নেন।

প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিদের তাদের এলাকাকে খাদ্য উৎপাদনে স্বাবলম্বী করতে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে বলেন, যাতে প্রতি ইঞ্চি জমি চাষাবাদের আওতায় আনা যায়।

সারাদেশে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনি জনগণকে সচেতন করার পাশাপাশি নবনির্বাচিত জন প্রতিনিধিদেরকে তাদের এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা জনকল্যাণমূলক স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই এবং তার মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন যেন নিশ্চিত হয় সেটাই আমাদের লক্ষ্য। এখানে আপনাদের একটা বিরাট দায়িত্ব রয়েছে। এলাকায় কিধরনের অসুবিধা আছে,মানুষের জন্য কি কল্যাণকর কাজ করা যেতে পারে, উন্নয়নের জন্য কি কাজ করতে পারেন-সেটা আপনাদের ভাবতে হবে।

তিনি বলেন, আমাদের এখানে বহুদলীয় গণতন্ত্র রয়েছে, অনেক দল রয়েছে। কেউ দল থেকে বা কেউ আলাদা ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। কিন্তু একটা কথা মনে রাখতে হবে যখন আপনি ভোটে নির্বাচিত হয়ে এসেছেন তখন আপনার দায়িত্ব সকলের জন্য। 

শেখ হাসিনা নিজের উদাহারণ টেনে বলেন, তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে উন্নয়নের ক্ষেত্রে কে তাকে ভোট দিল আর কোন এলাকার ভোটার সেটা দেখেননি।

তিনি বলেন, ‘আমি সার্বিকভাবে উন্নয়নের ব্যবস্থা নিয়েছি, প্রতিটি মানুষ যাতে উন্নয়নের ছোঁয়া পায় সেই ব্যবস্থাই আমরা নিয়েছি’।

তিনি বলেন, আমরা ৬১টি জেলা পরিষদে ২০২১-২২ অর্থবছরে রাজস্ব খাতের আওতায় প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা এবং এডিপি’র আওতায় ৫৪০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করেছি।

সূত্র: বাসস।


আরও খবর

এক দিনের সফরে যশোরে প্রধানমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার ২৪ নভেম্বর ২০২২




যাবতীয় কল্যাণ একমাত্র আল্লাহর হাতে

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | ৭৯জন দেখেছেন
Image

মহান আল্লাহ আমাদের সৃষ্টিকর্তা ও রিজিকদাতা। যাবতীয় কল্যাণ একমাত্র তাঁরই হাতে। তাই দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ লাভে তাঁর সন্তুষ্টি অর্জনের বিকল্প নেই। প্রশান্ত জীবন লাভে তাঁর আদেশ-নিষেধ মেনে চলার বিকল্প নেই। 

যারা তাঁর নির্দেশিত পথ থেকে সরে যাবে, তারাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। হতাশার পাহাড়গুলো তার মাথার ওপর চেপে বসবে। হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, মহাপবিত্র আল্লাহ বলেন, হে আদম সন্তান, আমার ইবাদতে মগ্ন হও। আমি তোমার অন্তরকে ঐশ্বর্যমণ্ডিত করব এবং তোমার দারিদ্র্য দূর করব। তুমি যদি তা না করো, তাহলে আমি তোমার অন্তর হতাশা দিয়ে পূর্ণ করব এবং তোমার দরিদ্রতা দূর করব না। (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৪১০৭)

অন্য বর্ণনায় আছে, হাদিসে কুদসিতে মহান আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে আদম সন্তান, তুমি আমার ইবাদতের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করো, আমি তোমার অন্তর ঐশ্বর্যে পূর্ণ করে দেব এবং তোমার অভাব দূর করে দেব। তুমি তা না করলে আমি তোমার দুই হাত কর্মব্যস্ততায় পরিপূর্ণ করে দেব এবং তোমার অভাব-অনটন রহিত করব না। ’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৪৬৬)

কারণ যারা মহান আল্লাহর আদেশ অমান্য করে দুনিয়াকে প্রাধান্য দেয়, মহান আল্লাহ তাদের প্রতি রহমতের দৃষ্টি দেন না। ফলে তাদের আত্মিক শান্তি উধাও হয়ে যায়। তারা যেদিকে তাকায় শুধু হতাশা-ব্যর্থতা দেখতে পায়। দুশ্চিন্তা তাদের চেপে ধরে। এর বিপরীতে যাদের চিন্তা আখিরাতকেন্দ্রিক হয়, তাদের দুনিয়ার চিন্তার জন্যও মহান আল্লাহ যথেষ্ট হয়ে যান। ফলে তারা দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ লাভ করে। তাদের ইহকাল ও পরকাল শান্তিময় হয়। আবদুল্লাহ বিন মাসউদ (রা.) বলেন, আমি তোমাদের নবী (সা.)-কে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি তার সমস্ত চিন্তাকে একই চিন্তায় অর্থাৎ আখিরাতের চিন্তায় কেন্দ্রীভূত করেছে, আল্লাহ তার দুনিয়ার চিন্তার জন্য যথেষ্ট। অপরদিকে যে ব্যক্তি যাবতীয় পার্থিব চিন্তায় নিমগ্ন থাকবে সে যেকোনো উন্মুক্ত মাঠে ধ্বংস হোক, তাতে আল্লাহর কিছু আসে যায় না। ’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৫৭)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তির একমাত্র চিন্তার বিষয় হবে পরকাল, আল্লাহ সেই ব্যক্তির অন্তরকে অভাবমুক্ত করে দেবেন এবং তার যাবতীয় বিচ্ছিন্ন কাজ একত্র করে সুসংযত করে দেবেন, তখন তার কাছে দুনিয়াটা নগণ্য হয়ে দেখা দেবে। আর যে ব্যক্তির একমাত্র চিন্তার বিষয় হবে দুনিয়া, আল্লাহ তাআলা সেই ব্যক্তির গরিবি ও অভাব-অনটন দুই চোখের সামনে লাগিয়ে রাখবেন এবং তার কাজগুলো এলোমেলো ও ছিন্নভিন্ন করে দেবেন। তার জন্য যা নির্দিষ্ট রয়েছে, দুনিয়াতে সে এর চেয়ে বেশি পাবে না। (তিরমিজি, হাদিস : ২৪৬৫)

তাই আমাদের উচিত, ইহকাল ও পরকালের কল্যাণ লাভের চেষ্টা করা। আল্লাহর কাছে অকল্যাণ থেকে আশ্রয় চাওয়া। সব কিছুতে মহান আল্লাহর আদেশ-নিষেধকে প্রাধান্য দেওয়া। ইনশাআল্লাহ, মহান আল্লাহ আমাদের দুনিয়া-আখিরাতের কল্যাণ ও নিরাপত্তা দান করবেন।


আরও খবর

শিরক থেকে দূরে থাকতে হবে

বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২