Logo
আজঃ সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
শিরোনাম

সুস্থ থাকতে সকালে চায়ের বদলে যা খাবেন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৪৫২জন দেখেছেন
Image

ঘুম থেকে উঠেই চট করে এক কাপ চা না হলে অনেকেই চটে যান। কিন্তু চা পানের আসরটা হালকা পিছিয়ে আগে খেয়ে নিতে পারে স্বাস্থ্যকর হালকা কিছু খাবার যেটি আপনার সারাদিন রাখবে চাঙা এবং আপনাকে রাখবে সুস্থ। সকালের মুল নাস্তায় যাওয়ার আগে ঘুম থেকেই উঠে হালকা খাবার খেয়ে নিন। এতে শরীরের বিপাক হার ভালো কাজ করে। চলুন তাহলে জেনে নেই দিনের শুরুতেই কি খাবেন:

কাঠবাদাম

7শরীরচর্চা শুরু করার আগে খেয়ে নিতে পারেন কাঠবাদাম
স্বাস্থ্যকর খাবারের জোগানে কাঠবাদামকে সবাই ওপরের দিকেই রাখেন। প্রতিদিন সকালে সারারাত ধরে ভিজিয়ে রাখা কাঠবাদাম খালি পেটে খেলে হৃদরোগ, ডায়াবেটিসের মতোন রোগের ঝুঁকি কমে যায়। শরীরচর্চা শুরু করার আগেও খেয়ে নিতে পারেন কাঠবাদাম যা আপনার শরীরে জোগাবে শক্তি।

আমলকি

8খালি পেটে আমলকির রস খেলে আপনার হৃদযন্ত্র এবং লিভার সুস্থ থাকবে
ভিটামিন 'সি' সমৃদ্ধ ফল আমলকি। ত্বক, চুল, স্বাস্থ্য যেকোনো বিষয়েই আপনার খেয়াল রাখে আমলকি। সকালে উঠে খালি পেটে আমলকির রস খেতে পারেন এতে আপনার ত্বক ও চুল তো ভালো থাকবেই সেইসাথে হৃদযন্ত্র এবং লিভারও থাকবে সুস্থ। 

পেঁপে

9পেঁপেতে রয়েছে খুবই সামান্য ক্যালরি
ওজন কমাতে চান? পাতে নিশ্চিন্তে রাখুন পেঁপে। এতে রয়েছে খুবই সামান্য ক্যালরি। তাই খিদে পেলে নিশ্চিন্তও পাকা কিংবা কাঁচা পেঁপে খেয়ে নিন। খালি পেটে পেঁপে খেলে আপনার কোলেস্টেরল থাকবে নিয়ন্ত্রণে সেইসাথে আপনার হজম প্রক্রিয়াও হবে দ্রুত।

মধু

10লেবু মধু পানীয় পানে শরীরের বিপাক হার বাড়বে এবং ওজনও কমবে দ্রুত
শরীরের বিপাকক্রিয়া বাড়িয়ে ওজন কমাতে জাদুকরী পানীয় উষ্ণ পানিতে লেবু মধুর মিশ্রণ। সকালে এই পানীয় পানে শরীরের বিপাক হার বাড়বে এবং ওজনও কমবে দ্রুত।

জিরে পানি

11জিরা পানি পানে শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বজায় থাকে
রাতে ঘুমানোর আগে এক গ্লাস পানিতে জিরে ভিজিয়ে রাখুন। সেটি সকালে খালি পেটে পান করলে শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বজায় থাকে। বিশেষ করে যাদের পিসিওডি বা থাইরয়েডের সমস্যা আছে তাদের জন্য এই পানীয় ভীষণ উপকারী।


আরও খবর

যেসব কারণে রক্ত ওঠানামা করে

সোমবার ২৯ আগস্ট ২০২২

আম খেলে কি ভালো ঘুম হয়

রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২




কুষ্টিয়ায় নৌকা ডুবিতে নিখোঁজ ফাতেমার মৃত দেহ পাংশায় উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
Image

রাজবাড়ী প্রতিনিধি: গত শুক্রবার ২ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়া জেলার ঘোড়াঘাট এলাকায় খেয়া পারাপারের সময় গড়াই নদীতে নৌকা ডুবিতে কুষ্টিয়া সদর ত্রিমহনী যুগিয়া এলাকার রমজান শেখের মেয়ে ফাতেমা ( ১০) নিখোঁজ হয়। উল্লেখ্য ঐদিন ঘোড়াঘাট এলাকায় নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা চলছিল।

৫ সেপ্টেম্বর সকালে সকালে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার কসবামাজাইল ইউনিয়নের নাদুরিয়া গড়াই নদীর ঘাট এলাকা থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পাংশা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান বলেন, ৯৯৯ থেকে ফেনে জানতে পারি নাদুরিয়া ঘাট এলাকায় একটি মরদেহ পাওয়া গেছে । বিষয়টি কুমারখালী থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ মরদেহটি নিয়ে যায়। 


আরও খবর



ছাত্রলীগের বিবাহিত অছাত্র ও মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১৭৯জন দেখেছেন
Image

কাশিয়ানী প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলা ছাত্রলীগের বিবাহিত অছাত্র ও মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

আজ মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কাশিয়ানী উপজেলার এম,এ খালেক বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ভিপি মোর্শেদুল আলমের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি উপজেলা শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে কাশিয়ানী জেলা পরিষদের ডাক বাংলোর সামনে গিয়ে শেষ হয়।

পরে সেখানে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সহ-সম্পাদক আরিফুল শিকদার, কাশিয়ানী উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রাকিব মুন্সি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক তুহিন মুন্সি, এম,এ খালেক বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক সভাপতি ইয়াসিন আরাফাত সুমন বক্তব্য রাখেন।


এসময় বক্তরা বলেন, ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ থাকে ১ বছর। কিন্তু দীর্ঘ ৭ বছরে কোন কমিটি হয়নি। কাশিয়ানী উপজেলা ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি আজাদ হোসেন মৃধা বিবাহিত। কিন্তু ছাত্রলীগে বিবাহিতদের থাকার কোন সুযোগ নেই। দ্রুত বিবাহিতদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি দেয়ার দাবি জানান তারা।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নিউটন মোল্যার সাথে যোগযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তার সাথে যোগাযোগ না হওয়ায় বক্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।


আরও খবর



নাটরের লালপুরে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনকে কেন্দ্র করে যুবক গুলিবৃদ্ধ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১৩৯জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধি:  নাটরের লালপুরে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনকে কেন্দ্র করে ২ পক্ষের বাক বিতন্ডের এক র্পযায়ে প্রতিপক্ষের গুলিতে রজব সরদার নামে এক যুবক গুলিবৃদ্ধ সহ ৪জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার ১৩ই সেপ্টেম্বর দুপুরে উপজেলার বিলমারিয়া ইউনিয়নের নাগশোষা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুলিবৃদ্ধ যুবক রজব সরদার একই গ্রামের ফজর সরদারের ছেলে। এছাড়াও রেখা, ফরিদা,ও রাকিব, নামে আরো তিনজন আহত হয়েছে।

স্থায়ী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনকে কেন্দ্র করে রজবের সাথে একই এলাকার শীর্ষ সন্তাসী ও মাদক ব্যবসায়ী সুমন,সবার,ও রুবেলের বাক বিতন্ড হয়। এক পর্যায়ে সন্তাসী সুমন তার কাছে থাকা অবৈধ অস্ত্র বের করে রজব সরদার ও তার ভাইদেরকে লক্ষ করে কয়েক রাউন্ড গুলি করে। এক পর্যায়ে রজব গুলিবৃদ্ধ হয়। স্বজনরা রবজকে উদ্ধার করে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। হাসপাতালে খবর নিয়ে জানা যায় রজব সরদারের অবস্থা আশংকা জনক,এবং এখনও গুলি বের করা সম্ভব হয়নি।

পরে রজব সরদারের ভাই আনারুল সরদার বাদী হয়ে শীর্ষ সন্তাসী ও মাদক ব্যবসায়ী সুমন কে প্রধান আসামী করে  ৭জনের নামে লালপুর থানায় একটা হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করে।

এবিষয়ে লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা মনুয়ারুজ জামান বলেন, পানি নামাকে কেন্দ্র করে এঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনা স্থল থেকে ১রাউড গুলির খোসা ও ১রাউড পিস্তলের তাজা গুলি উদ্ধার করে। এছারা ৫ জন আসামী আদালতে আত্বসমারপন করে জামিনে আছে। প্রধান আসামী সুমনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


আরও খবর



খানসামায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক অভিযানে জরিমানা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১১১জন দেখেছেন
Image

মাসুদ রানা: দিনাজপুরের খানসামায় স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা অনুযায়ী মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) সকালে খানসামা উপজেলার পাকেরহাটের বিভিন্ন ক্লিনিক ও  ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মারুফ হাসান।

এই অভিযানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. হাসানুর রহমান চৌধুরী, জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. রিজওয়ানুল কবির, মেডিকেল অফিসার ডা. আসিফ জাহান পিয়াস খান, স্যানিটারী ইন্সপেক্টর আবু তালেব সহ পুলিশ বাহিনীর সদস্য।

এ সময় পূর্বের নির্দেশিত  নিয়ম অনুযায়ী কোন প্রকার কাগজপত্র হালনাগাদ না করায় এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি সন্তোষজনক না হওয়ায় লাইফ কেয়ার ক্লিনিককে ৬ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া সকল ডায়াগনস্টিক ও ক্লিনিককে ২০২২-২৩ সালের লাইসেন্স ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হালনাগাদ করার নির্দেশ প্রদান করে সময় বেধে দেওয়া হয়।

অভিযান শেষে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মারুফ হাসান বলেন, খানসামার জনসাধারণ যাতে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো থেকে সঠিক সেবা পায় তার জন্য মোবাইল কোর্টের এ ধরণের অভিযান এবং মনিটরিং চলমান থাকবে।


আরও খবর



শিরক থেকে দূরে থাকতে হবে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

শিরক একটি আরবি শব্দ যার অর্থ অংশ। ইসলামী পরিভাষায় সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালার সঙ্গে কাউকে শরিক করা, কাউকে তাঁর সমকক্ষ ভাবা কিংবা অংশীদার করাকে শিরক বলে।

এটি একটি জঘন্য অপরাধ এবং কবিরা গুনাহ। মহান সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালা শিরককে বড় মিথ্যা এবং জুলুম বলে আখ্যায়িত করেছেন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিসে বলা হয়েছে- আল্লাহ তার বান্দার যে কোনো গুনাহকে ক্ষমা করে দেন। কিন্তু শিরকের গুনাহকে ক্ষমা করেন না। আমাদের সমাজে আল্লাহতায়ালার সঙ্গে বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন পন্থায় শিরক করা হয়ে থাকে। মানুষ পাথর, অগ্নি, গাছ ও কবর পূজা ইত্যাদির মাধ্যমে শিরক করে। তা ছাড়া ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকরি-বাকরি, বিবাহশাদি, রোগ-শোক, আয়-রোজগার ইত্যাদির ক্ষেত্রেও বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন পন্থায় শিরক করা হয়। শিরক চার ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। ১. আল্লাহর মূল সত্তায় শিরক, ২. আল্লাহর গুণাবলিতে শিরক, ৩. আল্লাহর অধিকারে শিরক, ৪. আল্লাহর এখতিয়ারে শিরক। পবিত্র কোরআনে শিরকের পরিণাম সম্পর্কে সতর্ক করে বলা হয়েছে- এটি একটি ক্ষমাহীন অপরাধ।

ইরশাদ করা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে তার সঙ্গে কাউকে শরিক করে। এ ছাড়া যাকে ইচ্ছা ক্ষমা করেন এবং কেউ আল্লাহর সঙ্গে শরিক করলে সে ভীষণভাবে পথভ্রষ্ট হয়। তারা তার পরিবর্তে শুধু দেবীরই পূজা করে এবং বিদ্রোহী শয়তানের পূজা করে।’ (৪-সুরা নিসা : ১১৬-১১৭)। যারা আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাউকে উপাস্য হিসেবে মানে তারা পথভ্রষ্ট। ইরশাদ করা হয়েছে- স্মরণ কর, যখন ইবরাহিম তার পিতা আজরকে বললেন : ‘তুমি কি প্রতিমাগুলোকে উপাস্য মনে কর? আমি দেখতে পাচ্ছি যে, তুমি ও তোমার সম্প্রদায় প্রকাশ্য পথভ্রষ্ট।’ (৬ সুরা আনয়াম : ৭৪)। আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টি করেছেন তার ইবাদতের জন্য। শিরকমুক্ত ইবাদতের মাধ্যমে বান্দা আল্লাহর সন্তুষ্টি বিধান করতে পারে।

সর্বশেষ ও শ্রেষ্ঠ নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশিত পথে আল্লাহর ইবাদত করতে হবে। হজরত আদম (আ.)-এর মাধ্যমে দুনিয়ার বুকে প্রথম নবীর আগমন, মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আগমনের মাধ্যমে পৃথিবীতে নবী রসুলের আগমন পর্বের সমাপ্তি টানা হয়েছে। মহানবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পর পৃথিবীতে আর কোনো নবী আসবেন না। তিনি হলেন বিশ্ববাসীর জন্য মনোনীত নবী।

কেয়ামত পর্যন্ত যত মানুষ পৃথিবীতে আসবে তারা তার উম্মতের মধ্যেই গণ্য হবে। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর পথে মানুষকে ডাকার এ মহান জিম্মাদারি তার উম্মতের মধ্যে যারা কোরআন হাদিসের জ্ঞানে জ্ঞানী তাদের ওপর দিয়েছেন। মহানবীর আগে যে হাজার হাজার নবী রসুল এসেছেন তাদের বিশেষ সম্প্রদায়ের নবী রসুল হিসেবে পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু আখেরি নবীর আগমন ঘটেছে সমগ্র মানবজাতির জন্য। ইরশাদ করা হয়েছে- ‘হে নবী আমি তোমাকে সারা বিশ্বের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি।’ (২১ সুরা আম্বিয়া : ১০৭)।


আরও খবর

মৃতদের জন্য জীবিতদের করণীয়

বৃহস্পতিবার ১৮ আগস্ট ২০২২

শোকের মাস মহররম

বৃহস্পতিবার ১১ আগস্ট ২০২২