Logo
আজঃ সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
শিরোনাম

ঠাকুরগাঁওয়ে হচ্ছে বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাত করণ শিল্পনগরী

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৩২২জন দেখেছেন
Image

মোঃ মজিবর রহমান শেখঃ ঠাকুরগাঁও জেলায় বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পনগরী প্রায় স্থাপনের পথে। ইতিমধ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেক) চুড়ান্ত অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ খবর শোনার পরপরই ঠাকুরগাঁও জেলার উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়িরা নানান স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। বিশেষ করে এ জেলার নারী উদ্যোক্তারা বড় ধরনের স্বপ্ন বুনতে শুরু করেছেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এ অঞ্চলের বিভিন্ন প্রকার খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে নতুন রূপে সারা বিশ্বে পরিচিতি লাভ করবে ঠাকুরগাঁও জেলা। 

ঠাকুরগাঁও বিসিক শিল্প নগরী সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের আকচা মৌজার ৫০ একর জায়গায় ৯৮ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থা বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক)।

একটি নির্দিষ্ট স্থানে পরিবেশবান্ধব শিল্প কমপ্ল্যায়ান্স সমৃদ্ধ আধুনিক ইন্ডাষ্ট্রিয়াল পার্ক স্থাপন এর মাধ্যমে ২৪৯টি শিল্প প্লট তৈরি করে প্রায় ২৩০টি শিল্প ইউনিট স্থাপনের ব্যবস্থা করা হবে। যেখানে ২৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এছাড়া এখানে নারীর ক্ষমতায়ন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১০ শতাংশ হিসেবে ২৫টি শিল্প প্লট সম্ভাবনাময় নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বরাদ্দ রাখা হবে। 

ঠাকুরগাঁও বিসিক শিল্প নগরীর উপ ব্যবস্থাপক নুরেল হক বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা কৃষিভিত্তিক একটি এলাকা। এ জেলায় অনেক ধরনের ফসল উৎপদন হয়। যেমন গম, সুর্যাপুরী আম, আলু, মরিচ, দুধ, চিজ, পনীর, টমেটো, মিষ্টি কুমড়া, ভুট্টা ইত্যাদি ফসলের আশাতীত ফলন হয়। এই পন্য সামগ্রী দিয়ে হাজারও রকমের খাদ্য সামগ্রীর চাহিদা পূরণ হয় এ জেলা থেকে।

বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পনগরীতে ৫০ একজর জমিতে ২৪৯ টি শিল্প প্লট থাকবে। ইতিমধ্যে প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ চুড়ান্ত হয়েছে। তার মাধ্যমে আরও জেনেছি দ্রুততার সাথে ভূমি অধিগ্রহন ও অন্যান্য উন্নয়নমূলক কাজ শুরু হবে। যেহেতু এটি খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প নগরী, সেহেতু খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণের সাথে প্রকৃতপক্ষে জড়িত তা যাচাই-বাছাই করে বরাদ্দ দেওয়া হবে বলে জেনেছি। 

ঠাকুরগাঁও উইমেনস চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ এর সভাপতি ও অন্যতম নারী উদ্যোক্তা চন্দনা ঘোষ প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এটা ঠাকুরগাঁওয়ের জন্য অনেক বড় একটি সুখবর। এর মধ্যে জেলার পিছিয়ে পরা নারীরা এগিয়ে আসবেন এবং অনেক কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাবে।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা বাসীর জন্য এটি একটি বড় সুখবর। বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পনগরী স্থাপন হলে একটি পরিকল্পিত খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা হবে। এতে করে প্রচুর মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার মাধ্যমে জিডিপিতে শিল্প খাতের অবদান বৃদ্ধিতে গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা রাখা সম্ভব হবে। সেই সাথে এ অঞ্চলের খাদ্যদ্রব্য উৎপাদনের সাথে সংশ্লিষ্টদের উৎপাদিত পন্যের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত হবে। সর্বোপরি খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল হিসেবে ঠাকুরগাঁও একদিন সুপরিচত একটি জেলায় রূপান্তর হবে। উল্লেখ্য, নতুন করে ৯৮ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পনগরী প্রকল্পটির অনুমোদন হলো। যেটি  বাস্তবায়ন করবে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থা বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক)।



টুয়েন্টি থ্রি /নিউজ



আরও খবর

অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে

মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২




রাজবাড়ীতে রাফি হত্যা মামলার ২ আসামী বিদেশী পিস্তল সহ গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

সৈকত শতদল ( রাজবাড়ী ) প্রতিনিধি: রাজবাড়ীতে দু’টি বিদেশী পিস্তলসহ হত্যা মামলার দুই আসামি গ্রেফতার চাঞ্চল্যকর আরিফুল ইসলাম রকি (২৭) হত্যা মামলার দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত

দু’টি বিদেশী পিস্তল, পাঁচটি খালি কার্তুজ ও দুইটি কার্তুজের মাথার অংশ উদ্ধার করা হয়। সোমবার সকালে পুলিশ সুপার সম্মেলকক্ষে রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সুপার এম.এম. শাকিলুজ্জামান এ তথ্য জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- রাজবাড়ী সদর উপজেলার চরখানখানাপুর গ্রামের নাজিমদ্দিন শেখের ছেলে রাকিব শেখ (৩৪) ও কুষ্টিয়া সদর উপজেলার দহকুলা গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের ছেলে ইয়ামিন

আলী (২২)। সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার এম.এম. শাকিলুজ্জামান জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে গত শনিবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ী সদরের খানখানাপুর সুরাজ মোহিনী ইনস্টিটিউটের সামনে আরিফুল ইসলাম রকিকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় রোববার নিহত রকির বাবা রাজ্জাক শেখ ১৬ জনকে আসামি করে রাজবাড়ী সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরো জানান, চলতি বছরের গত ৪মার্চ চরখানখানাপুর গ্রামে রাকিব শেখ নামে এক যুবকের হাতের কবজি কেটে বিচ্ছিন্ন করে প্রতিপক্ষ। ওই ঘটনায় রাকিবের বড় ভাই নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৬জনের বিরুদ্ধে রাজবাড়ী সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় প্রধান আসামী ছিলেন আরিফুল ইসলাম রকি। ওই মামলায় গ্রেফতার হয়ে রকি দীর্ঘদিন জেল হাজতে ছিলো। স¤প্রতি সে জামিনে বের হয়।


আরও খবর



সেনবাগে গ্রাহকের ৪০ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে মতিমিয়ারহাট সমিতির দায়িত্বশীলরা উধাও

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৩৪৭জন দেখেছেন
Image

রফিকুল ইসলাম সুমন: নোয়াখালীর সেনবাগে শতাধিক গ্রাহকের সাধারণ সঞ্চয় ও বিভিন্ন মেয়াদী  ডিপিএস এর জমানো প্রায় ৪০ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে সমিতির দায়িত্বশীলরা উধাও হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

সরজমিনে গিয়ে অর্ধশতাধিক  ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মতিমিয়ার হাট বাজারে অবস্থিত "মতিমিয়ার হাট বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ ( রেজিঃ নং ঃ নোয়া -১৫৮) নামে একটি সমিতি বিগত ৮ -১০ বছর যাবত ঐ এলাকার মানুষদের আকর্ষণীয় লভ্যাংশ দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সাপ্তাহিক ও মাসিক সাধারণ সঞ্চয় এবং বিভিন্ন  মেয়াদী ডিপিএস এর অর্থ আদায় করে আসছিলো। কিন্তু বিগত ২ বছরের ও অধিক সময় যাবত সমিতির অফিস বন্ধ করে দিয়ে গ্রাহকদের নিকট হতে অর্থ আদায় কার্যক্রম স্থগিত করে দিয়েছে সমিতির দায়িত্বশীলরা।

এমন পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়েন প্রায় শতাধিক গরীব ও হতদরিদ্র গ্রাহক।এমন পরিস্থিতিতে সমিতির সদস্যরা, সভাপতি জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ ডাঃ স্বপন ও আদায়কারী শহিদুল্লাহর নিকট বার বার তাদের জমাকৃত সঞ্চয়ের টাকা উত্তোলন করার আবেদন করে ও অদ্যবধি পর্যন্ত পাননি।

উপরন্তুু আদায়কারী শহিদুল্লাহর অনেকের টাকা ফেরৎ দিবে বলে তাদের হিসাব বই নিয়ে জব্দ করে বর্তমানে গা ঢাকা দিয়েছেন।গ্রাহকদের অভিযোগ প্রায় শতাধিক গ্রাহকের ৪০ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে বর্তমানে সমিতির দায়িত্বশীলরা পলাতক রয়েছেন এবং টাকা আত্মসাৎ এর বিষয়ে একে অপরকে দুষছেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেনকে ফোন দিলে, তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে বার বার ফোন কেটে দেন এবং একপর্যায়ে মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেন।সমিতির আদায়কারী শহিদুল্লাহকে ফোন দিলে তিনি তার স্ত্রী ও মেয়েকে দিয়ে ফোন রিসিভ করান এবং তারা বলেন শহিদুল্লাহ বাড়ীতে নেই। এদিকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু সাঈদ মুঠোফোনে গণমাধ্যমকে জানান, গত ২ বছর ধরে এই এলাকার বিভিন্ন বাড়ীতে গেলেই নারী - পুরুষদের এই অভিযোগ শুনতে হয়। সমিতির দায়িত্বশীলরা এলাকায় থাকেন না। তাই এ ব্যাপারে আমরা কিছুই করার নেই। 

সমিতির ভুক্তভোগী সদস্যরা সাংবাদিকদের জানান,  তাদের কষ্টার্জিত সঞ্চিত টাকা ফেরৎ পেতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এবং এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ করার প্রক্রিয়া চলছে।


আরও খবর



মোহনগঞ্জে ডিঙ্গাপোতা হাওরে নিখোঁজ জেলের মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:শনিবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৮৪জন দেখেছেন
Image
নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার ডিংগাপোতা হাওরে দমকা হাওয়ায় নৌকা ডুবে নিখোঁজ জেলে রাসেলের মরদেহ  উদ্ধার করা হয়েছে। 

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুর পৌনে ২ টার দিকে ডিঙ্গাপোতা হাওর সংলগ্ন বদরখালী খাল থেকে নৌকাসহ তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। 

এর আগে শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাত আনুমানিক ৯ টার দিকে ডিঙ্গাপোতা হাওরে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ ব্যক্তির হচ্ছে-উপজেলার গাগলাজুর ইউনিয়নের বানিহারি গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে রাসেল (৩০)।

মোহনগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও গাগলাজুর ইউনিয়নের বানিহারী গ্রামের সাবেক মেম্বার বাচ্চু মিয়া জানান, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে হঠাৎ করে দমকা হাওয়া বয়ে যায়। ওই সময়ে হাওরে থাকা জেলেরা একে অন্যের সহযোগিতায় অনেকেই রক্ষা পায়। 

কিন্তু বানিহারি গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে রাসেল (৩০) একা ছোট নৌকা দিয়ে মাছ ধরছিল। বাতাস শেষ হওয়ার পর এলাকাবাসী জেলেদের সন্ধানে এগিয়ে যায়। অনেককেই পানি থেকে উদ্ধার করা হয়। তবে রাসলকে নিখোঁজ হয়।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুর বারোটা পর্যন্ত রাসেলের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। তার লাশ উদ্ধারের জন্য ডিঙ্গাপোতা হাওয়ারে এলাকাবাসী তল্লাশি চালাচ্ছে। দুপুর পৌনে ২ টার দিকে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে। 

ওসি আরো বলেন, এখন পর্যন্ত ডিঙ্গাপোতা হাওরে জেলে নিখোঁজের সংবাদ কেউ জানায়নি। খবর নিয়ে পুলিশ পাঠিয়েছি।

মোহনগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছাব্বির আহমেদ আকুঞ্জি মোবাইল করে বলেন, জেলে উদ্ধারের জন্য ডুবুরী দল ডিংগাপোতা হাওরে খুঁজাখুঁজির আগেই স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে।



আরও খবর



মেয়ের সংসার ভাঙার দীর্ঘদিন পর মুখ খুললেন সামান্থার বাবা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

দক্ষিণী ভারতীয় সিনেমার জনপ্রিয় জুটি নাগা চৈতন্য ও সামান্থা রুথ প্রভু। গত বছরের ২ অক্টোবর যৌথ এক বিবৃতিতে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন এই তারকা যুগল। তাদের সংসার ভাঙার পর সামান্থার বাবা টুঁ-শব্দও করেননি। দীর্ঘদিন পর মেয়ের বিচ্ছেদ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেগঘন পোস্ট দিলেন সামান্থার বাবা জোসেফ প্রভু। মেয়ে ও মেয়ের জামাইয়ের এই সিদ্ধান্তে হতবাক হয়েছিলেন বলে জানান তিনি।

ইনস্টাগ্রাম পোস্টে জোসেফ প্রভু লিখেছেন, ‘সামান্থা-নাগার বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তের খবর জানার পর আমি স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। আশা করেছিলাম, দ্রুত সামান্থা-নাগার সমস্যার সমাধান হবে। ওদের দুজনের এই সিদ্ধান্ত খুবই বেদনাদায়ক।’

আমাকে ভেবে এখন চিত্রনাট্য তৈরি হয়: শেফালিআমাকে ভেবে এখন চিত্রনাট্য তৈরি হয়: শেফালি তিনি আরো বলেন, ‘এই মুহূর্তগুলো কখনো ভুলতে পারব না। নাগা-সামান্থার উচিত পরস্পরের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা।’

২০১০ সালে তেলেগু ভাষার ‘ইয়ে মায়া চেসাভ’ সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেন নাগা চৈতন্য ও সামান্থা। সিনেমার সেটেই তাদের প্রথম পরিচয়। তারপরই প্রেমের সম্পর্কে জড়ান তারা। এরপর লুকিয়ে দীর্ঘদিন প্রেম করেন এই জুটি। ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা।

জানা গেছে, বিয়ের পরও অভিনয় চালিয়ে যেতে চাইছেন সামান্থা। কিন্তু পর্দায় তার খোলামেলাভাবে উপস্থিতি পছন্দ করছিলেন না নাগা চৈতন্য ও তার বাবা নাগার্জুনা আক্কিনেনি। আর এজন্যই তাদের দূরত্ব তৈরি হয়; শেষ পর্যন্ত যা বিচ্ছেদে গড়ায়।


আরও খবর

যৌনপল্লীতে নায়িকা নিপুণ আক্তার !

বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




খানসামায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক অভিযানে জরিমানা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ১১০জন দেখেছেন
Image

মাসুদ রানা: দিনাজপুরের খানসামায় স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা অনুযায়ী মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) সকালে খানসামা উপজেলার পাকেরহাটের বিভিন্ন ক্লিনিক ও  ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মারুফ হাসান।

এই অভিযানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. হাসানুর রহমান চৌধুরী, জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. রিজওয়ানুল কবির, মেডিকেল অফিসার ডা. আসিফ জাহান পিয়াস খান, স্যানিটারী ইন্সপেক্টর আবু তালেব সহ পুলিশ বাহিনীর সদস্য।

এ সময় পূর্বের নির্দেশিত  নিয়ম অনুযায়ী কোন প্রকার কাগজপত্র হালনাগাদ না করায় এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি সন্তোষজনক না হওয়ায় লাইফ কেয়ার ক্লিনিককে ৬ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া সকল ডায়াগনস্টিক ও ক্লিনিককে ২০২২-২৩ সালের লাইসেন্স ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হালনাগাদ করার নির্দেশ প্রদান করে সময় বেধে দেওয়া হয়।

অভিযান শেষে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মারুফ হাসান বলেন, খানসামার জনসাধারণ যাতে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো থেকে সঠিক সেবা পায় তার জন্য মোবাইল কোর্টের এ ধরণের অভিযান এবং মনিটরিং চলমান থাকবে।


আরও খবর