Logo
আজঃ শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3
শিরোনাম
বীরত্ব’ সিনেমা

যৌনপল্লীতে নায়িকা নিপুণ আক্তার !

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | ৩২৬জন দেখেছেন

Image

দেশের আলোচিত নায়িকা নিপুণ আক্তার। দীর্ঘদিন পর ‘বীরত্ব’ সিনেমা দিয়ে প্রেক্ষাগৃহে আসছেন তিনি। ১৬ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। এতে যৌনকর্মীর চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। শুটিংয়ের জন্য টানা পাঁচদিন রাজবাড়ির যৌনপল্লীতে থেকেছেন তিনি। এই পাঁচদিন নানা অভিজ্ঞতার মুখে পড়েছেন এই অভিনেত্রী। সেখানকার মানুষদের জীবন-যাপন দেখেছেন অতি কাছ থেকে।

নিপুণ বলেন, এই সিনেমায় আমাকে একজন যৌনকর্মীর চরিত্রে দেখা যাবে। যে জীবনে সব হারিয়েও বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে। আমার বিশ্বাস আমার চরিত্রটি অনেক অসহায় নিপীড়িত মেয়েদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সহায়তা করবে। তাদের আশা জাগাবে, তারা নতুন করে বাঁচতে চাইবে।’

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী বললেন, ‘নিষিদ্ধ পল্লীতে কাজ করা এটা আসলে একটা অন্যরকম অভিজ্ঞতা। সেটা দেখার জন্য আপনাদের হলে আসতে হবে।’

সাম্প্রতিক পরাণ ও হাওয়া' এর মাধ্যমে দর্শকরা হলে আসতে শুরু করেছেন। নতুন করে সিনেমা পুনর্জীবিত হয়েছে। এই পালে হাওয়া দেবে বীরত্ব। নিপুণ বলেন, পরাণ ও হাওয়া দেখে দেখে আপনারা যে স্বস্তি পেয়েছেন, বীরত্ব সিনেমাটা দেখেও আপনারা সেই স্বস্তিট পাবেন।’

ছবিটিতে  নিপুণের বিপরীতে একজন দালালের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ছোটপর্দার অভিনেতা ও অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি আহসান হাবীব নাসিম।

সাইদুল ইসলাম রানার প্রথম সিনেমা ‘বীরত্ব’তে নায়ক-নায়িকার ভূমিকায় আছেন মামনুন হাসান ইমন ও নবাগত নিশাত নাওয়ার সালওয়া। তাদের দুজনকেই দেখা যাবে চিকিৎসকের ভূমিকায়। এছাড়া খল চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইন্তেখাব দিনার। পুলিশ অফিসারের চরিত্রে আছেন শতাব্দী ওয়াদুদ। আরও আছেন বড়দা মিঠু ও জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়সহ অনেকে।


আরও খবর



সারাদেশে ২৩১ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন

প্রকাশিত:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২৮জন দেখেছেন

Image

চলমান উত্তপ্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও হরতালকে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সারা দেশে ২৩১ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা ও এর আশপাশের জেলায় ২৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

২০ নভেম্বর সকালে বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঢাকা ও আশপাশের জেলায় ২৮ প্লাটুনসহ সারাদেশে ২৩১ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

এর আগে বিএনপির চলমান কর্মসূচিকে সমর্থন জানিয়ে পৃথকভাবে হরতাল পালনের ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীসহ যুগপৎ আন্দোলনের শরিক গণতন্ত্র মঞ্চ, ১২ দলীয় জোট, জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট, বাংলাদেশ গণঅধিকার পরিষদ, লেবার পার্টি, এলডিপি।

এদিকে রোববার থেকে সোমবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৬টি আগুন লাগার সংবাদ পেয়েছে ফায়ার সার্ভিস। এ ঘটনায় ১৮টি যানবাহনে আগুনের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ঢাকা সিটিতে তিনটি, ঢাকা বিভাগ একটি, রাজশাহী বিভাগে (নাটোর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ) সাতটি, চট্টগ্রাম বিভাগে (ফেনী, মিরসরাই, সাতকানিয়া) চারটি, ময়মনসিংহ বিভাগে (জামালপুর) একটি ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় ৯টি বাস, একটি কাভার্ড ভ্যান, ৬টি ট্রাক, একটি সিএনজি, একটি ট্রেন (৩ বগি) পুড়ে যায়।

হরতালের সমর্থনে বিভিন্ন স্থানে মশাল মিছিল করেছেন বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবি।

প্রসঙ্গত, ২৮ অক্টোবর ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশ পুলিশ পণ্ড করে দেওয়ার পর সরকারের পদত্যাগের একদফা দাবিতে বিএনপিসহ সমমনা জোটগুলো ২৯ অক্টোবর সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করে। এরপর পাঁচ দফায় ১১ দিন পর্যায়ক্রমে সারা দেশে অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। যা শেষ হয় গত ১৭ নভেম্বর সকালে।


আরও খবর

বঙ্গোপসাগরে সুস্পষ্ট লঘুচাপ

বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩




সাম্প্রদায়িকতার স্থান নেই ইসলামে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3 | ৪৬জন দেখেছেন

Image

ইসলামিক ডেস্ক : ইসলাম শান্তির ধর্ম। সমগ্র মানব সমাজের শান্তি নিশ্চিত করতে ইসলামের আগমন। সাম্প্রদায়িকতার কোনো স্থান এ পবিত্র ধর্মে নেই। ইসলামে অমুসলিমদের ধর্ম পালনে পূর্ণ স্বাধীনতা প্রদান করা হয়েছে। কোরআন শরিফে আল্লাহপাক হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নির্দেশ দিয়েছেন অমুসলিমদের এ কথা বলতে, “তোমাদের কর্ম ও কর্মফল তোমাদের জন্য এবং আমার কর্ম ও কর্মফল আমার জন্য।” (সুরা কাফিরুন : ৬)। অন্য ধর্মাবলম্বীদের ইসলাম ধর্ম পালনের জন্য জোর-জবরদস্তি করতে ইসলাম ধর্ম নিষিদ্ধ করেছে। এ ব্যাপারে কোরআন শরিফে বলা হয়েছে- “দ্বীনের ব্যাপারে কোনো জোর-জবরদস্তি নেই।” (সুরা বাকারাহ : ২৫৬)। মুসলিম-অমুসলিম সবারই জীবনের নিরাপত্তার ব্যাপারে ইসলামে সমান গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে। পবিত্র কোরআন শরিফে বলা হয়েছে, কোনো মানুষ যদি কাউকে হত্যা করে সে যেন পৃথিবীর সব মানুষকে হত্যা করল; আর কেউ যদি কারও প্রাণ রক্ষা করে সে যেন পৃথিবীর সবার প্রাণ রক্ষা করল।” (সুরা মায়িদাহ : ৩২)। রসুল (সা.) বলেছেন, “মনে রেখ, যদি কোনো মুসলমান অন্য কোনো অমুসলিম নাগরিকের ওপর নিপীড়ন চালায়, তার অধিকার খর্ব করে, তার কোনো মাল জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়, তাহলে কেয়ামতের দিন আমি আল্লাহর আদালতে তার বিরুদ্ধে অমুসলিম নাগরিকের পক্ষ অবলম্বন করব।” (আবু দাউদ)।

হাদিসে আছে, একদা রসুল (সা.) এর পাশ দিয়ে একটি লাশ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তিনি তা দেখে দাঁড়িয়ে যান, উপস্থিত সাহাবায়ে কেরাম তখন বললেন, এ তো ইহুদির লাশ। রসুল (সা.) তাদের জিজ্ঞেস করলেন, ‘সে মানুষ ছিল তো?’ (বুখারি)। ইসলাম মুসলিম-অমুসলিম সব আত্মীয় ও প্রতিবেশীর অধিকার রক্ষা করতে বলে। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আমি মানুষকে বাবা-মায়ের সঙ্গে সুন্দর আচরণের আদেশ করেছি। তবে তারা যদি তোমার ওপর বল প্রয়োগ করে আমার সঙ্গে এমন কিছু শরিক করতে, যে সম্পর্কে তোমার কোনো জ্ঞান নেই, তাহলে তাদের কথা মানবে না।’ (সুরা আনকাবুত)। রসুল (সা.) বলেন, ‘প্রতিবেশীর বিষয়ে জিবরাইল আমাকে এত উপদেশ দিচ্ছিলেন, আমি মনে করছিলাম, তিনি হয়তো তাদের ওয়ারিশই বানিয়ে দেবেন।’ (তিরমিজি)। ইসলাম অন্য ধর্মের অনুসারীদের সঙ্গে ধর্ম নিয়ে এ বিষয়ে নবী করিম (সা.) বিদায় হজের ভাষণে বলেছেন, “সাবধান! ধর্ম সম্বন্ধে বাড়াবাড়ি করিও না। এ বাড়াবাড়ির কারণে তোমাদের পূর্ববর্তী বহু জাতি ধ্বংস হয়ে গেছে।”

ইসলাম মুসলিম-অমুসলিম সবার প্রতি ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। ইরশাদ করা হয়েছে, “কোনো সম্প্রদায় এর প্রতি বিদ্বেষ যেন তোমাদের এমনভাবে প্ররোচিত না করে যে তোমরা (তাদের প্রতি) ন্যায়বিচার করবে না। তোমরা ন্যায়বিচার করবে।” (সুরা মায়িদাহ : ৮)।

প্রত্যেক ধর্মের অনুসারীদের কাছে তাদের উপাস্য অতি পবিত্র। এক ধর্মের অনুসারী অন্য ধর্মের উপাস্যকে গালি দিলে পারস্পরিক সম্পর্কের অবনতি ঘটে। এমনকি সাম্প্রদায়িক হানাহানি বা দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি হয়। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অবনতি ঘটে। সমাজে অশান্তির সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে কোরআন শরিফে বলা হয়েছে, “তারা (অমুসলমানরা) আল্লাহকে বাদ দিয়ে যাদের ডাকে তাদের তোমরা গালি দিও না। তা না হলে তারা অজ্ঞতাবশত আল্লাহকেও গালি দিয়ে বসতে পারে।” (সুরা আনআম : ১০৮)। ইসলাম অমুসলিমদের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি মেনে চলার শিক্ষা দেয়। এ বিষয়ে কোরআন শরিফে বলা হয়েছে, “সেইসব মুশরিক যাদের সঙ্গে তোমরা (মুসলমানরা) চুক্তি করেছ, তারা চুক্তি রক্ষার ব্যাপারে একটুও কম করেনি, আর না তোমাদের বিরুদ্ধে অন্য কাউকে সাহায্য করেছে, তাদের সঙ্গে তোমরাও মেয়াদ পর্যন্ত চুক্তি মেনে চলবে।” (সুরা তওবা : ৪)। আত্মীয় অমুসলমান হলেও তার সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা করতে ইসলামে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। হজরত আসমা বিনতে আবু বকর (রা.) বলেছেন, “রসুলের যুগে আমার মা মুশরিক অবস্থায় আমার কাছে এলেন। তখন আমি রসুলুল্লাহ (সা.) এর কাছে জিজ্ঞাসা করলাম, আমার মা এসেছেন, তিনি অমুসলিম। আমি কি তার সঙ্গে আত্মীয়তা রক্ষা করব? মহানবী (সা.) বলেন, হ্যাঁ তার সঙ্গে আত্মীয়তা রক্ষা কর।” (বোখারি)। কোরআন শরিফে এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, “তোমার পিতা-মাতা যদি তোমাকে এ বিষয়ের ওপর পীড়াপীড়ি করে যে, তুমি আমার সঙ্গে শিরক (আল্লাহর শরিক) করবে যে বিষয়ে তোমার কোনো জ্ঞান নেই, তুমি তাদের কথা মানবে না, তবে দুনিয়ার জীবনে তুমি তাদের (অমুসলিম পিতা-মাতার) সঙ্গে অবশ্যই ভালো ব্যবহার করবে।” (সুরা লোকমান : ১৫)। যে কোনো ধর্মের মানুষ প্রতিবেশী হতে পারে। প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করলে, ঝগড়াঝাটি করলে অশান্তিই সৃষ্টি হয়, অমুসলিম প্রতিবেশী হলে তাতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিও নষ্ট হয়। তাই প্রতিবেশী যে ধর্মেরই হোক প্রতিবেশী হিসেবে তাদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে কোনো অবহেলা করা উচিত নয়।


আরও খবর

তাওবার গুরুত্ব

বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩




আরেক দফা বাড়ল স্বর্ণের দাম

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | ৪৫জন দেখেছেন

Image

দেশের বাজারে আবারও স্বর্ণের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। সবচেয়ে ভালো মানের স্বর্ণের ভরি ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৭৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস জানিয়েছে, রোববার (১৯ নভেম্বর) থেকে নতুন দাম কার্যকর করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য বেড়েছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

নতুন দাম অনুযায়ী প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৭৬ টাকা। এ ছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ১ হাজার ৫৩৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৮৭ হাজার ১৩ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরির দাম ৭২ হাজার ৫৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে চলতি মাসের ৫ নভেম্বর ভরিতে ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ২২ ক্যারেট এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ৪ হাজার ৬২৬ টাকা নির্ধারণ করে বাজুস। এছাড়া ২১ ক্যারেটের স্বর্ণের ভরি ৯৯ হাজার ৯০২ টাকা, ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণের ভরি ৮৫ হাজার ৬১৪ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৭১ হাজার ৩২৫ টাকা।

চলতি মাসে এ নিয়ে দুই দফা বাড়ল স্বর্ণের দাম। আর অক্টোবর মাসে চার দফায় বাড়ানো হয়েছিল স্বর্ণের দাম। গত ৪, ১১ ও ১৫ অক্টোবর স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়। তার আগের মাস সেপ্টেম্বরেও ২ দফায় বাড়ানো হয় স্বর্ণের দাম।


আরও খবর



দর বাড়ানোর প্রভাবে রেমিট্যান্সে ঊর্ধ্বগতি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | ৩৬জন দেখেছেন

Image

চলমান ডলার-সংকট কাটাতে ১২৪ থেকে ১২৫ টাকা পর্যন্ত দরে রেমিট্যান্সের ডলার কিনছে অনেক ব্যাংক। এতে  ব্যাংকিং চ্যানেলে আবার রেমিট্যান্স বাড়ছে। চলতি মাসের প্রথম ১০ দিনে ব্যাংকিং চ্যানেলে মোট ৭৯ কোটি ৪৪ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে। পুরো মাসে এ হারে রেমিট্যান্স এলে তা আবারও ২ বিলিয়ন ডলার ছাড়াবে বলে আশা করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যস্থতায় ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) ও বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনকারী ব্যাংকের সংগঠন বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন (বাফেদা) ডলার কেনার সর্বোচ্চ দর ১১০ টাকা ৫০ পয়সা ঠিক করেছে। অবশ্য সরকারি ও ব্যাংকের নিজস্ব প্রণোদনাসহ রেমিট্যান্স কেনার সর্বোচ্চ দর ঠিক করা হয়েছে ১১৬ টাকা। চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম ১০ দিনে দৈনিক গড়ে ৭ কোটি ৯৪ লাখ ডলারের বেশি রেমিট্যান্স কিনেছে ব্যাংকগুলো।

চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে টানা রেমিট্যান্স কমার পর অক্টোবরে বেড়েছে। গত অক্টোবরে আসে প্রায় ১৯৮ কোটি ডলার। আগের বছরের একই মাসের তুলনায় যা প্রায় ৩০ শতাংশ এবং আগের মাসের তুলনায় ৪৮ শতাংশ বেশি। গত বছরের নভেম্বর মাসে রেমিট্যান্স আসে ১৬০ কোটি ডলারের কম।

দুই দিনের ব্যবধানে খোলাবাজারে ডলারের দাম কিছুটা কমেছে। রবিবার রাজধানীর খোলাবাজারে প্রতি ডলার বিক্রি হয়েছে ১২৫ টাকা ৫০ পয়সায়। গত বৃহস্পতিবার ১২৭ টাকায়ও ডলার বিক্রি হয়েছিল। সংশ্লিষ্টরা জানান, সাধারণ ক্রেতারা ব্যাংক থেকে ডলার কিনতে পারছেন না। আবার মানি চেঞ্জারগুলোয়ও নির্ধারিত দামে ডলার পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে খোলাবাজারই এখন ডলার জোগানের অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে। এতে ডলারের দাম দফায় দফায় বাড়ছে। তাতে বাড়তি দামে ডলার কিনতে হচ্ছে তাদের।


আরও খবর

আরেক দফা বাড়ল স্বর্ণের দাম

শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩




শাহরুখের ‘জওয়ান’ গড়ল নতুন রেকর্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | ৫৪জন দেখেছেন

Image

বিনোদন ডেস্ক : শাহরুখ খানের জওয়ান নিয়ে মাতামাতি কমছে না এখনও। শুধু ২০২৩ সালের নয়, বলিউডের ছবির ইতিহাসে এমন অভাবনীয় সাফল্যের মুখ দেখেনি কোনো সিনেমা। একসময় যারা ‘জিরো’ বলেছিল শাহরুখকে, স্টারডম নিয়ে তুলেছিল প্রশ্ন, তারা এখন মুখ লুকাতে ব্যস্ত। এরইমধ্যে বিশ্বব্যাপী ১১০০ কোটির ব্যবসা করে সর্বাধিক উপার্জিত হিন্দি ছবি হিসেবে নিজের জায়গা পাকা করে নিয়েছেন কিং খান। এতকিছুর পর নতুন করে কোন রেকর্ড গড়ল এই সিনেমা।

বাণিজ্য বিশ্লেষক সুমিত কাদেল একটি পোস্ট করেছেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্সে (সাবেক টুইটার)। সেখানে লেখেন প্রায় ৩.৯২ কোটি লোক হলে এসেছে জওয়ান দেখতে। হিন্দি সিনেমার ইতিহাসে যা সর্বোচ্চ। 

সুমিত কাদেল লেখেন, ‘প্রেক্ষাগৃহে জওয়ান দেখতে ৩.৯২ কোটি লোকের পা পড়েছে। যা হিন্দি সিনেমার ইতিহাসে সর্বোচ্চ। ওটিটি-তে মুক্তি পাওয়ার পরও জওয়ান চলছে সিনেমা হলে।’

সুমিত জওয়ানের আয়ের অঙ্ক শেয়ার করে লিখলেন, ভারতে ছবির আয় ৫৮৩.৪৫ কোটি, ডাবিং ৬০.৪৪ কোটি। ভারতে মোট আয় ৬৪৩.৮৯ কোটি। আর বিশ্বব্যাপী আয় ১১৫১.৭৩ কোটি।

আপাতত শাহরুখ খানের ভক্তরা অধীর অপেক্ষায় আছেন ডাঙ্কি মুক্তির। রাজকুমার হিরানির পরিচালনায় প্রথমবার কাজ করছেন শাহরুখ খান। আগে বেশ কয়েকবার সুযোগ এলেও, দুজনের একসঙ্গে কাজ করা হয়নি বিভিন্ন কারণে। কিং খানের জন্মদিনের দিন প্রকাশ্যে এসেছিল টিজার। ছবিতে আরও রয়েছেন তাপসী পান্নু, ভিকি কৌশল, বোমন ইরানি। ২২ ডিসেম্বর এই সিনেমার মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে।  

সালমানের টাইগার ৩-তেও কথা রয়েছে শাহরুখের কেমিওর। যদিও তা নিশ্চিত নয় এখনই। তবে শাহরুখ আর সালমানকে জলদি দেখা যাবে টাইগার ভার্সেস পাঠান-এ। 


আরও খবর