Logo
আজঃ সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
শিরোনাম
উপকুল রক্ষায়

তজুমদ্দিন ও লালমোহনে ১১শ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ২৮১জন দেখেছেন
Image

ভোলা সংবাদদাতাঃ ভোলার তজুমদ্দিন ও লালমোহন উপজেলার মেঘনা উপকুলীয় অঞ্চল রক্ষা ও নদীর তীর সংক্ষনের জন্য বৃহৎ একটি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহি কমিটি (একনেক) ভোলা-৩ আসনের মেঘনা নদীর তীর সংক্ষনে এক হাজার ৯৬ কোটি ৬০ লক্ষ টাকার একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়। নির্বাচনী এলাকায় এমন খবর আসার পরপরই সাধারণ মানুষকে আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। স্থানীয় মানুষ এত বড় প্রকল্প অনুমোদনের জন্য একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং স্থানীয় সাংসদ নুরুন্নবী চৌধূরী-কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

সুত্রে জানায়, তজুমদ্দিন ও লালমোহন উপজেলার উপকুলীয় বাঁধ পূর্নবাসন, নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন ও সংরক্ষণ প্রকল্পে (১ম পর্যায়) এক হাজার ৯৬ কোটি ৬০ লক্ষ টাকার একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে বোরহানউদ্দিন উপজেলার হাসান নগর ইউনিয়ন থেকে দক্ষিনে তজুমদ্দিন ও লালমোহন উপজেলা হয়ে চরফ্যাশন উপজেলার বেতুয়া পর্যন্ত ৩৪ কি.মি. বাঁধের উন্নয়ন হবে।

বাঁধের উচ্চতা আরো ৫ ফুট বৃদ্ধি কওে ১৮ ফুট কার্পেটিং সড়কের প্রস্তাব করা হয়েছে। সড়ক বাঁধের একপাশে ব্লক ও জিও ব্যাগ দ্বারা নদীর তীর সংরক্ষণ ও অপরপাশে সবুজায়ন করা হবে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেষ হাসিনার সভাপতিত্বে মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গণভবন প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সংবাদ সম্মেলন করার পর এ তথ্য টিভিতে প্রচারের পরপরই মানুষের মধ্যে আনন্দ উচ্ছ্বাস দেখা যায়।  

সাংসদ নুরুন্নবী চৌধূরী জানান, এ প্রকল্পটি এলাকার মানুষের প্রানের দাবী ও আমার নির্বাচনী অঙ্গিকার। ভোলার মানুষকে নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষায় এবং এযাবৎ কালে জেলার সবচেয়ে বড় প্রকল্প অনুমোদন দেয়ায় এলাকার মানুষের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই।

শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকলেই এদেশে উন্নয়ন হয়। তাই এ প্রকল্পের কারনে ভোলার মানুষ বারবার আওয়ামীলীগকে ভোট দিবে। ইতিপূর্বেও প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে নদীর তীর সংরক্ষনের জন্য তজুমদ্দিনে ৬শ কোটি এবং লালমোহনে ২৩২ কোটি টাকার কাজ বাস্তবায়ন করা হয়।




টুয়েন্টি থ্রি /নিউজ


আরও খবর

অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে

মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২




এশিয়া কাপ ২০২২

বাংলাদেশের আফগান চ্যালেঞ্জ আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৯৫জন দেখেছেন
Image

আইসিসির টি-২০ র‍্যাংকিংয়ের অবস্থান নিশ্চিতভাবেই এই ফরম্যাটে দুই দল সম্পর্কে হয়তো সঠিক বার্তা দিতে পারছে না। সংক্ষিপ্ত সংস্করণে টাইগারদের চেয়ে পরিণত দল আফগানিস্তান। এই তথ্যে বিভ্রান্তির সুযোগ কম।

চলমান এশিয়া কাপে দারুণ ফর্মে আছে মোহাম্মদ নবির দল। শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দেওয়া আফগানদের বিপক্ষেই আজ বাংলাদেশের এশিয়া কাপ মিশন শুরু হবে, যে ম্যাচে নবির দলটার সঙ্গেই থাকছে ‘ফেভারিটের’ তকমা। শারজা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

তবে উড়তে থাকা আফগানদের ওপর হামলে পড়ার উপলক্ষ্য আছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সামনে। কারণ আজ মাঠে নামতেই দেশের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টি-২০তে ম্যাচ খেলার ‘সেঞ্চুরি’ পূর্ণ করবেন সাকিব আল হাসান। অধিনায়কের শততম ম্যাচটা জয়ের আবিরে রাঙাতে প্রয়োজন সম্মিলিত প্রয়াস। জ্বলে উঠতে হবে দল হিসেবে।

আজ আফগান পরীক্ষায় টাইগারদের পক্ষে নেই পরিসংখ্যান, পারিপার্শ্বিকতা। এটুকু বিশ্বাস অবশ্য আছে যে, আফগানদের মাটিতে নামানোর সামর্থ্য আছে টিম বাংলাদেশের। আগের আট বারের সাক্ষাতে তাদের কাছে পাঁচ বার হেরেছে বাংলাদেশ, জিতেছে তিন বার। আবার শেষ পাঁচ ম্যাচে মাত্র একটি জয় চিন্তার কারণ বটে। অধিনায়ক সাকিবের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা দলের বড় সাহস। ক্যারিয়ারের শততম ম্যাচে বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারের কাছেও ব্যবধান গড়া পারফরম্যান্স চায় বাংলাদেশ। সঙ্গে এই ফরম্যাটের অভিজ্ঞ বোলার মুস্তাফিজুর রহমানের জ্বলে ওঠা প্রয়োজন। বিজয়, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, শেখ মেহেদীরা পারফর্ম করতে পারলে আফগানদের হারানো সম্ভব।

দুরন্ত ছন্দে থাকা আফগানিস্তান দলের মূল শক্তি বোলিং। স্পিনার রশিদ খান, মুজিব, নবিদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ফজল হক ফারুকির ক্ষুরধার পেস বোলিং। সামনে তাই কঠিন চ্যালেঞ্জ, যা উতরে যেতে হবে সাহসী ব্যাটিং দিয়ে। সাকিব-মুস্তাফিজ-মেহেদীকে নিয়ে বাংলাদেশের বোলিংটাও নেহাত খারাপ নয়। ভারতীয় ধারাভাষ্যকার সঞ্জয় মাঞ্জেরকারের মতে, আজকের ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেবেন ব্যাটসম্যানরা। যে দলের ব্যাটিং ভালো হবে, তারাই জয়ের হাসি হাসবে।

এখন দেখার বিষয় সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহর ৩১৮ ম্যাচের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দিতে পারে কি না।



আরও খবর

এশিয়া কাপ শেষে দেশে ফিরলো টাইগাররা

শনিবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২




যেসব কারণে রক্ত ওঠানামা করে

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৯০জন দেখেছেন
Image

রক্ত উঠানামা একটি জটিল স্বাস্থ্যগত সমস্যা। কারো কারো ক্ষেত্রে রক্তচাপ খুব অস্বাভাবিক বেড়ে যায়, আবার কখনও রক্তচাপ অস্বাভাবিক কমে যায়। এমনটি কোনো কোনো সময় বিপজ্জনক।

রক্তচাপ উঠানামা করার কারণ ও প্রতিকার নিয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন মেডিনোভা হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. তৌফিকুর রহমান 

রক্তচাপ কেন ওঠানামা করে, রক্তচাপ অনেক কারণে ওঠানামা করতে পারে। কিছু রোগীর কারণে, কিছু খাবারের কারণে, কিছু রক্তচাপ মাপার মেশিনের কারণে, কিছু রক্তচাপ মাপার পদ্ধতিগত সমস্যার কারণে ও পরিবেশগত কারণে রক্তচাপ ওঠানামা করতে পারে।

রোগীর কী কী কারণে রক্তচাপ ওঠানামা করে

রোগী দুশ্চিন্তা করলে রক্তচাপ হঠাৎ খুব বেড়ে যেতে পারে আবার দুশ্চিন্তা কমে গেলে বা নিয়ন্ত্রণে এলে রক্তচাপ স্বাভাবিক হতে পারে। যদিও প্রাথমিকভাবে এই বাড়তি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য সাময়িকভাবে কিছু উচ্চ রক্তচাপের ওষুধ ও দুশ্চিন্তা নিয়ন্ত্রণের ওষুধ লাগতে পারে, পরবর্তীকালে সাধারণত উচ্চ রক্তচাপের ওষুধের আর প্রয়োজন নাও হতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে দুশ্চিন্তা বেশি করলে রক্তচাপ স্বাভাবিকের চেয়ে কমেও যেতে পারে। রোগী যদি দীর্ঘদিন ধরে শরীরের ব্যথা কমানোর ওষুধ বিশেষ করে এনএসএআইডি জাতীয় ওষুধ সেবন করে রোগীর রক্তচাপ বাড়তে পারে বা ওঠানামাও করতে পারে। রোগী যদি নিয়মিত ওষুধ না খায় বা মাঝেমাঝে ওষুধ বাদ দেয় তবে রক্তচাপ ওঠানামা করতে পারে। রোগী যদি দীর্ঘদিন জন্মনিয়ন্ত্রণের ওষুধ খান তবে রক্তচাপ বাড়তে পারে বা ওঠানামা করতে পারে। রোগীর যদি কিডনিতে সমস্যা থাকে তাহলেও রক্তচাপ ওঠানামা করতে পারে। রোগীর যদি কিছু হরমোনজনিত রোগ যেমন হাইপারথাইরয়েডিজম (থাইরয়েড গ্লান্ড থেকে বেশি বেশি থাইরয়েড হরমোন বের হওয়া রোগ) বা ফিওক্রোমোসাইটোমা (কিডনির উপরে অবস্থিত এড্রেনাল গ্লান্ডের টিউমার রোগ) জাতীয় রোগ হয় তবে রক্তচাপ ওঠানামা করতে পারে।

কী কী খাবারের কারণে রক্তচাপ ওঠানামা করে? অতিরিক্ত কফি পান, চা পান ও ধূমপান করলে রক্তচাপ বাড়তে পারে। রক্তচাপ মাপার মেশিনের তারতম্যের কারণে কি রক্তচাপ ওঠানামা করতে পারে হ্যাঁ, বিভিন্ন প্রকারের রক্তচাপ মাপার মেশিন বিভিন্ন সময়ে ব্যবহারের কারণে রক্তচাপের মান ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। আবার দেখা যায় অটোমেটিক মেশিনে রক্তচাপ মাপার কয়েক মিনিট পরে আবার রক্তচাপ মাপলে আগের মাপের থেকে ভিন্নতা পাওয়া যায়।

রক্তচাপ মাপার কী পদ্ধতিগত সমস্যার কারণে ও পরিবেশগত কী কী কারণে রক্তচাপ ওঠানামা করে

রক্তচাপ মাপার মেশিনের সঠিক সাইজ ব্যবহার না করলে, রক্তচাপ মাপার সময় কথা বললে, অনেক পরিশ্রম বা ব্যায়ামের পর রক্তচাপ মাপলে বা হোয়াইট কোট হাইপারটেনশনের কারণে রক্তচাপের মান বেশি আসতে পারে।

হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন কী? অনেক রোগী চিকিৎসকের চেম্বারে আসার পর অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় টেনশন বা দুশ্চিন্তায় ভোগেন, ফলে রক্তচাপ অনেক বেড়ে যায়, কিন্তু এসব রোগীর বাসায় বা অন্য সময় রক্তচাপ স্বাভাবিক বা কম থাকে, যেহেতু ডাক্তাররা সাদা এপ্রোন বা কোট পরিধান করে তাই এ সমস্যাকে হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন বলে।


সুত্র:  যুগান্তর


আরও খবর

মুখে ব্রণের দাগ দূর করতে

শনিবার ২৩ জুলাই ২০২২




মুখোমুখি ভারত-পাকিস্তান, ক্রিকেট মাঠে মহাযুদ্ধ আজ

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৯৬জন দেখেছেন
Image

এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের ১৫তম আসরের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচে আজ রবিবার মুখোমুখি হচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান। এ দুই দেশের লড়াইটা বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদাকর হিসেবেই পরিচিতি লাভ করেছে। এই মর্যাদার লড়াইয়ে জিততে মুখিয়ে থাকে দু’দলই। তাই প্রতিবারই ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে থাকে বাড়তি উন্মাদনা। এবারো এর ব্যতিক্রম নয়। টুর্নামেন্টে এ’ গ্রুপে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় মুখোমুখি হবে ভারত ও পাকিস্তান।

দুই দলের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ বন্ধ হওয়ার পর ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের আবেদন যেন আরও বেড়েছে। বিশ্বকাপ, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি, এশিয়া কাপের মতো আসরে তাই ভারত ও পাকিস্তানের ম্যাচ মানেই গোটা ক্রিকেট বিশ্বে বাড়তি রোমাঞ্চ। দুই দলের এবারের লড়াই দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। এই ভেন্যুতে ব্যাটার ও বোলারদের ভারসাম্য থাকে প্রতিটি ম্যাচেই। বাউন্ডারি ছোট বলে ব্যাটাররা দ্রুত রান তোলার কথা ভাববেন, এটাই স্বাভাবিক। তবে ছেড়ে কথা বলবেন না বোলাররাও। নতুন বলে পেসাররা গতি ও বাউন্স দিয়ে নাভিশ্বাস তুলতে পারেন ব্যাটারদের। আবার স্পিনাররা মাঝখানের ওভারগুলোতে বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারেন যেকোনো দলের বিপক্ষে।

একাদশ সাজাতে তাই রোহিত শর্মা ও বাবর আজমের দলকে বেশ মুন্সিয়ানার পরিচয় দিতে হবে। সেক্ষেত্রে দলের সেরা খেলোয়াড়ের অনুপস্থিতি ভোগাবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীকেই। চোটের কারণে ভারত এই ম্যাচে পাচ্ছে না পেসার জাসপ্রিত বুমরাহকে। একইভাবে পাকিস্তান পাচ্ছে না তাদের সেরা পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদিকে। দুই মূল হাতিয়ার ছাড়া কেমন হতে পারে দুই দলের একাদশ, তা নিয়ে চলছে জল্পনাকল্পনা।

দুবাইয়ে ইতোমধ্যে মুহূর্তের অনুশীলন করেছেন ভারত ও পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা। অনুশীলনের ফাঁকে পরস্পরের সঙ্গে করমর্দন করছেন দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দলের ক্রিকেটাররা। ইনজুরিতে শেষ মুহূর্তে এশিয়া কাপ থেকে সরে দাঁড়ান বাঁহাতি পেসার শাহীন আফ্রিদি। বাঁহাতি পেসার না থাকায় পাকিস্তানের পেস অ্যাটাকের শক্তি কমেছে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দলকে উৎসাহ দিতে দুবাইয়ে হাজির হয়েছেন তিনি। অনুশীলন শেষে আফ্রিদি করমর্দনে শুভকামনা জানিয়েছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। শুধু আফ্রিদি নন, পাকিস্তানে অধিনায়ক বাবর আজম, লেগ স্পিনার শাদাব খানরাও শুভকামনা জানিয়েছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটারকে।

তবে ভারত-পাকিস্তান লড়াইকে শুধুমাত্র একটি ‘ম্যাচ’ বলেই মনে করেন দুই দলের বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেটাররা। তাদের মতে, এটি অন্যান্য ম্যাচের মতই। তবে চাপ অনুভব করেন দলে থাকা ক্রিকেটাররা। বাড়তি চাপ থাকায়, মর্যাদার লড়াইয়ে জিততে মরিয়া ভারত ও পাকিস্তান। ভারতের অধিনায়ক রোহিত শর্মা বলেন, সকলেই এই ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকে। খুব চাপের ম্যাচ এটি, তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। তবে দলের পরিবেশ হালকা পরিবেশ রাখতে চাই। এই ম্যাচ নিয়ে খুব ভেবে নিজেদের চাপে ফেলতে চাই না। যারা কোনো দিন পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেনি বা মাত্র একটি-দুটি ম্যাচে খেলেছে, তাদের ভালো করে এই ম্যাচের গুরুত্ব বোঝাতে চাই। আমরা পাকিস্তানকে অন্য যে কোনো সাধারণ বিপক্ষের মতোই দেখছি। তবে ম্যাচ জিতেই মাঠ ছাড়ার লক্ষ্য আমাদের।

রোহিতের সুরে কথা বলেন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমও। তিনি বলেন, অন্যান্য ম্যাচের মত হলেও, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে বাড়তি চাপ এমনতিতেই চলে আসে। এই চাপকে সামলেই লড়াই করতে হয় ক্রিকেটারদের। কারণ সকলেই জানে, এমন ম্যাচের গুরুত্ব কত বেশি। তাই জয়ের জন্য মুখিয়ে থাকে ক্রিকেটাররা। এবারো আমরা জয়ের জন্য মাঠে নামবো।

এদিকে, দুই ক্রিকেট পরাশক্তির টি-২০ ম্যাচ নিয়ে উন্মাদনার সৃষ্টি হয়েছে দুবাইসহ গোটা বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যে। এই ম্যাচ দিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের মিশন শুরু হবে রোহিত শর্মার ভারত ও বাবর আজমের পাকিস্তানের। দুবাইয়ে দুই দল সর্বশেষ টি-২০ ম্যাচ খেলেছিল গত অক্টোবরে। টি-২০ বিশ্বকাপের ওই ম্যাচে ভারতকে ১০ উইকেটের আকাশসমান ব্যবধানে হারিয়েছিল পাকিস্তান। সেই ম্যাচে শাহীন শাহ আফ্রিদির বিধ্বংসী বোলিংয়ে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৫১ রান করেছিল ভারত। মোহাম্মদ রিজওয়ানের ৭৯ ও বাবরের ৬৩ রানে ভর করে পাকিস্তান ম্যাচটি জিতেছিল ১৩ বল হাতে রেখে। 

অবশ্য দুই দেশের পরিসংখ্যানের বিচারে এগিয়ে রোহিত শর্মার ভারত। ৯ ম্যাচের ৬টিতে জিতেছেন রোহিতরা এবং বাবরের পাকিস্তানের জয় ২টি। ২০০৭ সালে প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপে দুই দল প্রথম খেলেছিল টি-২০ ম্যাচ। ‘টাই’ ম্যাচটি ‘বোল আউট’ পদ্ধতিতে জিতেছিল ভারত। এশিয়া কাপে দুই দল একবার খেলেছে পরস্পরের বিপক্ষে। ২০১৬ সালে মিরপুর স্টেডিয়ামে ম্যাচটি ভারত জিতেছিল ৫ উইকেটে।

অন্যদিকে, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচকে আড়াল করে সব আলো কেড়ে নিয়েছেন কোহলি। ছন্দহীন ভারতীয় ড্যাসিং ক্রিকেটার যেন রানে ফিরেন ক্রিকেটপ্রেমীদের মতো পাকিস্তানের ক্রিকেটাররাও চাইছেন। আফ্রিদি করমর্দন শেষে বলেন, ‘আপনি আবার রানে ফিরুন। এটাই প্রার্থনা করছি।’ পাকিস্তানের লেগ স্পিনার শাদাব খান বলেন, ‘বিরাট কোহলি সেঞ্চুরি করুন। তবে নিশ্চিত করে সেটা আমাদের বিপক্ষে নয়। অন্য দলের বিপক্ষে।’ 

আদিকে, আজ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচে যদি আজ নামেন ভারতীয় সাবেক এই অধিনায়ক, তাহলে নতুন একটি মাইলফলক গড়বেন। অধিনায়ক রোহিতের পর দ্বিতীয় ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টি-২০ ক্রিকেটে ১০০ ম্যাচ খেলার মাইলফলক গড়বেন তিনি। ১৩২ ম্যাচের ১২৪ ইনিংসে রোহিতের রান ৪ সেঞ্চুরি ও ২৭ হাফসেঞ্চুরিতে ৩৪৮৭ রান। কোহলি ৯৯ ম্যাচের ৯১ ইনিংসে ৩০ হাফসেঞ্চুরিতে রান করেছেন ৩৩০৮।   

প্রসঙ্গত, আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে শনিবার (২৭ আগস্ট) শুরু হয়েছে এশিয়া কাপ। অক্টোবর-নভেম্বর টি-২০ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে এবারের এশিয়া কাপের খেলাগুলো হচ্ছে টি-২০ ফরম্যাটে। 


আরও খবর

এশিয়া কাপ শেষে দেশে ফিরলো টাইগাররা

শনিবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২




মধুখালী উপজেলার গাজনা ইউনিয়নে অস্ত্রবিহীন ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
Image

মধুখালী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি: ১৩ সেপ্টেম্বর সকাল ১১  টায় মধুখালী উপজেলার গাজনা ইউনিয়নে অস্ত্রবিহীন ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণের অষ্টম কর্ম দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন থেকে সদস্যদের মাঝে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন মধুখালী থানার অফিসার ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম।

আরও উপস্থিত ছিলেন মধুখালী উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা  নিরব বিশ্বাস, উপজেলা আনসার কোম্পানি কমান্ডার জামিনি সিংহ রায় , মধুখালী গাজনা  ইউনিয়ন প্লাটন কমান্ডার আইয়ুব আলী,  সহকারী প্লাটুন কমান্ডার আফসার আলী, ইউনিয়ন দলনেত্রী আকলিমা বেগমসহ আরও অনেকে।


আরও খবর



মানবাধিকার কমিশনের কোটালীপাড়া শাখার পরিচিত সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
Image

কোটালীপাড়া প্রতিনিধি: বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের কোটালীপাড়া উপজেলা শাখার কর্মীদের নিয়ে পরিচিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে ৷

শুক্রবার সন্ধ্যায় ক্যাফে ৭১ রেস্টুরেন্টে আয়োজিত পরিচিতি সভায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের কোটালীপাড়া শাখার সভাপতি কাজী অমিত মাহমুদ এর সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তৃতা রাখেন সিনিয়র সহ-সভাপতি সুবল চক্রবর্তী, শাহ- আলম শিকাদার । এছাড়াও পরিচিত সভায় উপস্থিত থেকে বক্তৃতা রাখেন মনিন্দ্রনাথ রায়,  কমল দাস,ইমরান হোসেন, প্রভাষক চয়ন বিশ্বাস, রনি আহমেদ, নাসির হাওলাদার, শিখা বিশ্বাস সালমান প্রমুখ 

অনুষ্ঠানে বক্তারা সাধারন মানুষের অধিকার আদায়ে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের কার্যক্রম ও লক্ষ্য সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা  করেন। এবং নবগঠিত কোটালীপাড়া উপজেলা শাখার কর্মীদের দায়িত্ব পালনে উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন কোটালিপাড়া উপজেলা শাখার সম্মানিত মানবিক সাধারণ সম্পাদক এফ এম মহাবুব সুলতান । 



আরও খবর